ভোলায় কিশোরকে পেটানোর ভিডিও ফেইসবুকে, ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-01-21 12:43:07 BdST

bdnews24

ভোলার চরফ্যাশন উপজেলায় মুরগি চুরির অভিযোগে ১৪ বছর বয়সী এক কিশোরকে বেঁধে প্রকাশ্যে পেটানোর ভিডিও ফেইসবুকে ছড়িয়ে পড়ার পর স্থানীয় এক ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে।

শশিভূষণ থানার ওসি মনিরুল ইসলাম জানিয়েছেন, শিশু আইনে দায়ের করা ওই মামলার আসামিদের গ্রেপ্তারে তারা ইতোমধ্যে অভিযান শুরু করেছেন।

চরফ্যাশন উপজেলার হাজারীগঞ্জ ইউনিয়নে প্রকাশ্যে নির্যাতনের ওই ঘটনা ঘটে গতবছর ১৫ নভেম্বর। কিন্তু নির্যাতনকারীরা এলাকায় প্রভাবশালী হওয়ায় ভুক্তভোগী অস্বচ্ছল পরিবার এতদিন মামলা করার সাহস পাচ্ছিল না বলে স্থানীয়দের ভাষ্য।

সম্প্রতি নির্যাতনের ভিডিওটি ফেইসবুকে আলোচনার জন্ম দিলে এলাকার লোকজনের সহায়তায় ওই কিশোরের মা স্থানীয় ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেনসহ ছয়জনকে আসামি করে শশীভূষণ থানায় মামলা করেন।

নির্যাতনের শিকার ওই কিশোরের বাড়ি হাজারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে। আসামি আমজাদ ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য। আর তার সহযোগী জাহাঙ্গীর ফরাজী ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক । 

মামলার বিবরণে বলা হয়, ১৪ নভেম্বর রাতে কবির তালুকদার নামে স্থানীয় এক ব্যক্তি তার প্রতিবেশী ওই কিশোরের বিরুদ্ধে মুরগি চুরির অভিযোগ করেন ইউপি সদস্য আমজাদের কাছে। এরপর আমজাদ ও জাহাঙ্গীরের নেতৃত্বে তাদের সহযোগীরা ছেলেটিকে ধরে হাজারীগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের মাঠে নিয়ে যায়।

সেখানে পিছমোড়া করে হাত ও পায়ের মাঝে লাঠি বেঁধে তাকে পেটানো হয়। পরে ওই কিশোর এবং তার কয়েকজন সঙ্গীকে মারধর করে কান ধরে উঠবস এবং নাকে খত দেওয়ানো হয়। উপস্থিত জনতার মধ্যে কেউ একজন ওই ঘটনা ভিডিও করেন এবং সম্প্রতি তা ফেইসবুকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

নির্যাতিত ওই কিশোরের মা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, তার ছেলে এক সওদাগরি নৌকায় বাবুর্চির কাজ করে।

“পাড়ার কয়েকজন ছেলে মিলে বনভোজন করার জন্য সেদিন তারা কবিরের স্ত্রীর কাছ থেকে ৩০০ টাকায় একটি মুরগি কেনে। কিন্তু কবির মুরগি চুরির কথা বলে আমার ছেলের নামে নালিশ করলে ওকে ধরে নিয়ে গিয়ে মারধোর করে।

“পরে আমজাদ মেম্বার আমার কাছে ২০ হাজার টাকা চায়। নাকফুল বেচে আমি ৫ হাজার টাকা দিয়ে মেম্বারের কাছ থেকে ছেলেকে ছাড়িয়ে আনি । আমি এর বিচার চাই।

অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে ইউপি সদস্য আমজাদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

হাজারীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সেলিম হাওলাদার বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আমি বিষয়টি শুনে ভিকটিমকে থানায় অভিযোগ দিতে বলেছি।”

আর শশিভূষণ থানার ওসি মনিরুল ইসলাম বলেন, “ওই কিশোরকে অমানবিক নির্যাতন করা হয়েছে। নির্যাতনের ভিডিও আমার কাছে আছে। আমরা আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা নেব।”

ইউপি সদস্য আমজাদ হোসেন, কবির তালুকদার ও জাহাঙ্গীর ফরাজী ছাড়াও ওয়ার্ড যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মামুন চৌধুরী, ও বাবুল মাঝিকে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে বলে জানান ওসি।