বার্সায় শোনা সমালোচনাই সুয়ারেসের অনুপ্রেরণা

  • স্পোর্টস ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-05-15 16:55:44 BdST

bdnews24

খুব করে চেয়েছিলেন বার্সেলোনায় থেকে যেতে। প্রয়োজনে খেলতে চেয়েছিলেন বদলি হিসেবে। কিন্তু রোনাল্ড কুমানের পরিকল্পনায় জায়গা মেলেনি। বাধ্য হয়ে লুইস সুয়ারেস পাড়ি জমান আতলেতিকো মাদ্রিদে। বয়সের ভারকে তুড়ি মেরে উড়িয়ে আলো ছড়াচ্ছেন। আতলেতিকো ছুটছে লা লিগা জয়ের পথে। সুসময়ে দাঁড়িয়ে সেই কঠিন সময়ে পিছু ফিরে তাকালেন উরুগুয়ের তারকা। জানালেন, গত বছরের সমালোচনা তার জন্য ছিল অনুপ্রেরণা।

পুরনো ঠিকানা কাম্প নউয়ে ছয় বছরের ক্যারিয়ারে চারটি লা লিগা ও একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগসহ অনেক শিরোপা জিতেছিলেন সুয়ারেস। দলের অনেক সাফল্যে রেখেছিলেন গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা। লিওনেল মেসি ও নেইমারের সঙ্গে মিলে গড়ে তুলেছিলেন বিধ্বংসী ‘এমএসএন’ আক্রমণত্রয়ী।

নতুন ঠিকানায় মানিয়ে নিতেও সমস্যা হয়নি তার। লা লিগার চলতি মৌসুমের সেরা পারফরমারদের একজন সুয়ারেস। যারা গত বছর তার শেষ দেখে ফেলেছিলেন, তাদেরকে প্রতি ম্যাচেই দেখাচ্ছেন নিজের সামর্থ্য। ক্লাব দেল দেপোর্তিসতাকে উরুগুয়ের এই ফরোয়ার্ড শোনালেন চ্যালেঞ্জ জয়ের গল্প।

“সবাই চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করে এবং এখানে আসাটা অনেক কারণেই আমার জন্য খুবই চ্যালেঞ্জিং ছিল। গত বছর আমি সমালোচিত হয়েছিলাম এবং বলা হয়েছিল, বড় কিছুর জন্য লড়ার সামর্থ্য আমার আর নেই। বার্সেলোনাতে শীর্ষ পর্যায়ে লড়তে পারব না আমি।”

“ওই বিষয়গুলো ব্যক্তিগত পর্যায়ে আমার জন্য চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছিল। যখন আতলেতিকোয় এলাম, আমিও চেয়েছিলাম ফুটবলের সেরাদের মধ্যে একজন হিসেবে নিজেকে দেখাতে। আর এ কারণেই অনেক বছর ধরে আমি এই পর্যায়ের খেলোয়াড়। দারুণ উৎসাহ নিয়েই কঠিন চ্যালেঞ্জটা নিয়েছিলাম। কোন কিছু নিয়ে দুঃখ নেই আমার।”

লিগে আতলেতিকোর দারুণ পথচলায় ১৯ গোল অবদান রেখেছেন ৩৪ বছর বয়সী সুয়ারেস। সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় আছেন চতুর্থ স্থানে। করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গোলগুলো ভরা গ্যালারির সামনে উদযাপন করতে পারেননি বলে কিছুটা হতাশা আছে সুয়ারেসের।

“দর্শকের উষ্ণতা আমি ভীষণ মিস করি। দর্শকে ভরা স্টেডিয়ামে এবং নিজেদের মাঠে ভরা গ্যালারির সামনে খেলাটা আমি মিস করি। কেননা, কোনো কারণ ছাড়াই আমাকে কষ্ট পেতে হয়েছে।”

“আমার সন্তান ও পরিবারের লোকজনও দর্শকভরা স্টেডিয়ামে থাকতে চায়; (তাদের সামনে গোলগুলো উদযাপন করতে পারলে) দারুণ ব্যাপার হতো। আশা করি, সেটা খুব দ্রুতই সম্ভব হবে।” 

৩৬ ম্যাচে ৮০ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার টেবিলে শীর্ষে রয়েছে আতলেতিকো। ওসাসুনার বিপক্ষে পরের ম্যাচ তাদের। এ ম্যাচে দিয়েগো সিমিওনের দল জিতলে এবং একই সময়ে রিয়াল মাদ্রিদ যদি আথলেতিক বিলবাওয়ের কাছে পয়েন্ট হারায়, তাহলে শিরোপা উৎসব শুরু হবে সুয়ারেসদের।

সে উৎসবে শামিল হতে পারবেন না সমর্থকেরা। বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না উরুগুয়ের এই ফরোয়ার্ড। তার প্রত্যাশা ওয়ান্দা মেত্রোপলিতানোয় দর্শকপূর্ণ স্টেডিয়ামে নিজের গোলগুলো উদযাপন করতে পারবেন শিগগিরই।

“আশা করি, মুহূর্তটা দ্রুতই আসবে। (ওয়ান্দা মেত্রোপলিতানোয় সমর্থকদের নিয়ে গোল উদযাপন) করতে পারলে দারুণ হতো। কেননা, আমি জানি, আমরা যে চেষ্টাটা করেছি, তার জন্য আতলেতিকো সমর্থকরা আমাদের উপর সন্তুষ্ট।”


ট্যাগ:  সুয়ারেস  আতলেতিকো মাদ্রিদ