পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

লড়াইটা গুয়ার্দিওলার সঙ্গে আমার নয়: টুখেল

  • স্পোর্টস ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-05-29 16:37:15 BdST

bdnews24
ম্যানচেস্টার সিটি কোচ পেপ গুয়ার্দিওলা (বাঁয়ে) ও চেলসি কোচ টমাস টুখেল।

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের ফাইনালে মুখোমুখি হতে যাচ্ছেন আধুনিক ফুটবলের সেরা কোচদের দুই জন, টমাস টুখেল ও পেপ গুয়ার্দিওলা। তবে মাঠের লড়াইটা তো আর তাদের মধ্যে নয়। সেটাই মনে করিয়ে দিলেন চেলসির কোচ টুখেল। বললেন, ম্যানচেস্টার সিটির বিপক্ষে তাদের লড়াইটাকে কেবল দুই কোচের লড়াই হিসেবে দেখাটা ভুল হবে।

টুখেলের চোখে প্রথম চ্যাম্পিয়ন্স লিগ শিরোপা জয়ের স্বপ্ন। গত আসরে খুব কাছে গিয়েও পূরণ হয়নি চাওয়া; ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের বিপক্ষে হেরেছিল তার ওই সময়ের দল পিএসজি। অন্যদিকে, কোচ হিসেবে দুইবার ইউরোপ সেরার মুকুট পরেছেন গুয়ার্দিওলা; বার্সেলোনার হয়ে ২০০৯ ও ২০১১ সালে।

দারুণ সব কৌশলে প্রতিপক্ষকে চ্যালেঞ্জ জানানোয় জুড়ি নেই গুয়ার্দিওলার। অন্যদিকে, খুব বড় কোনো শিরোপা না জিতলেও কৌশলগতভাবে নিজেকে আলাদাভাবে জানান দিয়েছেন টুখেলও। বরুশিয়া ডর্টমুন্ডের হয়ে একটি জার্মান কাপ এবং পিএসজির হয়ে দুটি লিগ ও একবার করে ফরাসি কাপ ও ফরাসি লিগ কাপ জিতেছেন এই জার্মান।

এবার দ্বিতীয় প্রচেষ্টায় ক্যারিয়ারে সবচেয়ে বড় শিরোপা জয়ের খুব কাছে তিনি। বাংলাদেশ সময় শনিবার রাত একটায় সিটির মুখোমুখি হবে টুখেলের ছোঁয়ায় বদলে যাওয়া চেলসি।

ম্যাচের আগের দিন শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে টুখেল জোর দিয়ে বললেন, আসছে লড়াইটা কোনোভাবেই তার সঙ্গে প্রতিপক্ষ কোচের নয়।

“আমি কখনোই মনে করি না যে, লড়াইটা আমার ও পেপের মধ্যে। আমরা আগামীকাল (শনিবার) কোনো টেনিস ম্যাচ খেলব না। পেপ সম্ভাব্য সেরা উপায়ে তার দল প্রস্তুত করবে, আমি আমার দল।”

গত জানুয়ারিতে চেলসির দায়িত্ব নেওয়ার পর এরই মাঝে সিটিকে দুইবার হারিয়েছেন টুখেল; এফএ কাপের সেমি-ফাইনালে এবং প্রিমিয়ার লিগে অ্যাওয়ে ম্যাচে।

মুখোমুখি সবশেষ দুই লড়াইয়ে জয় মিললেও আসছে ম্যাচে তার কোনো প্রভাব থাকবে না, খুব ভালো করেই জানেন ৪৭ বছর বয়সী টুখেল।

“সিটির বিপক্ষে দুটি ভিন্ন প্রতিযোগিতায় আমরা দুটি অভিজ্ঞতা অর্জন করেছি। ভিন্ন দুটি একাদশের বিপক্ষে ভিন্ন দুই ম্যাচ। ম্যাচের নির্দিষ্ট কিছু জায়গায় আমাদের কতটা সাহসী হতে হবে সেই অভিজ্ঞতা আমাদের রয়েছে।”

“সিটি, বায়ার্ন (মিউনিখ) অথবা বার্সেলোনার বিপক্ষে খেলা সবসময়ই কঠিন যখন সাইডলাইনে পেপ থাকেন। তিনি খেলোয়াড়দের মাঝে বিশাল আত্মবিশ্বাস ও সফল হওয়ার মানসিকতা তৈরি করেন।”

সিটি শক্ত প্রতিপক্ষ হলেও ওয়েম্বলিতে (এফএ কাপের সেমি-ফাইনালে) ও ম্যানচেস্টারে জিতে তাদের সঙ্গে ব্যবধান কমিয়ে এনেছেন বলে মনে করেন টুখেল।

“হতে পারে বর্তমানে সিটি ইউরোপের বা বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী দল এবং লিগে আমাদের চেয়ে তারা অনেক বড় ব্যবধানে এগিয়ে শিরোপা জিতেছে। কিন্তু ওয়েম্বলিতে ৯০ মিনিটের জন্য ব্যবধানটা আমরা কমিয়ে এনেছিলাম, এরপর ম্যানচেস্টারেও সেই ব্যবধানটা কমিয়েছি।”

মৌসুমের সবচেয়ে বড় ম্যাচে পূর্ণ শক্তির দলই পাচ্ছেন টুখেল।

গোলরক্ষক এদুয়াঁ মঁদি ও মিডফিল্ডার এনগোলো কঁতে চোট কাটিয়ে দলের সঙ্গে অনুশীলন করেছেন বলে বলে জানালেন তিনি।

“দলের অবস্থা সব সময়ের চেয়ে ভালো। দলের সবাই খেলতে প্রস্তুত। দলে কোনো চোট নেই। আশা করছি, আজকের অনুশীলন শেষেও এই অবস্থা বজায় থাকবে।”