রুশ টিকা বানাতে চায় ওরিয়ন ফার্মা

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-05-05 17:26:04 BdST

রাশিয়ার উদ্ভাবিত কোভিড-১৯ টিকা বাংলাদেশে তৈরি করতে চায় ওরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালস।

এজন্য রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগও শুরু হয়েছে বলে বুধবার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জকে জানিয়েছে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ওষুধ প্রস্তুতকারী প্রতিষ্ঠানটি।

রুশ টিকা স্পুৎনিক-ভি

ওরিয়ন ফার্মা বলেছে, তারা রাশিয়ার কোম্পানিগুলোর বিদেশে বিনিয়োগ তদারককারী কর্তৃপক্ষ‘ডিরেক্ট ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড’র সঙ্গে যোগাযোগ করে করোনাভাইরাসের টিকা তৈরির প্রযুক্তি চেয়েছে। যদি রাশিয়া প্রযুক্তি দেয়, তাহলে তারা বাংলাদেশে তাদের নিজেদের কারখানায় টিকা উত্পাদন করবে।

রাশিয়ার তৈরি করোনাভাইরাসের টিকা স্পুৎনিক বাংলাদেশে অনুমোদন

কোভিড-১৯: চীন-রাশিয়ার টিকা বাংলাদেশেও তৈরির পথ খুলল  

ওরিয়ন ফার্মা আরও জানিয়েছে, তারা গত রোববার বাংলাদেশের ঔষধ প্রশাসন অধিদপ্তরের সঙ্গেও বিষয়টি নিয়ে যোগাযোগ করেছে। পরে স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়কেও আগ্রহের কথা জানিয়েছে তারা।

করোনাভাইরাস মহামারীর বছর গড়ানোর পর লড়াইয়ের অস্ত্র হিসেবে এসেছে টিকা। বিভিন্ন দেশে বেশ কয়েকটি টিকা তৈরি হয়েছে। তবে ব্যাপক চাহিদার কারণে টিকা সরবরাহ করতে হিমশিম খাচ্ছে সেই ওষুধ কোম্পানিগুলো।

রাশিয়া তাদের টিকা স্পুৎনিক-ভি বাংলাদেশি কোনো কোম্পানির মাধ্যমে উৎপাদনের প্রস্তাব দেওয়ার পর বাংলাদেশও তাতে রাজি হয়েছে। রাশিয়া বলছে, প্রযুক্তি গোপন রাখার শর্তে এই টিকা তৈরি করতে দেওয়া হবে। 

রাশিয়ার স্পুৎনিক-ভি এর পাশাপাশি চীনের সাইনোফার্মের টিকা বাংলাদেশে তৈরির নীতিগত অনুমোদন ইতোমধ্যে দিয়েছে বাংলাদেশ সরকার।

তবে কোন কোন কোম্পানিকে এই টিকা তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হবে, তা এখনও চূড়ন্ত হয়নি।

বাংলাদেশের আরও ওষুধ কোম্পানিও রাশিয়ার সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারে। তবে কারা টিকা তৈরি করবে, তা নির্ভর করছে বাংলাদেশ এবং রাশিয়ার উপর।

তবে টিকা তৈরির আগ্রহের খবরে দেশের পুঁজিবাজারে ওরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালসের শেয়ারের দাম বেড়েছে। মঙ্গলবার তাদের শেয়ার ৪৬ টাকা ৮০ পয়সায় লেনদেন হয়েছিল; বুধবার তা বেড়ে ৫১ টাকা ৪০ পয়সা হয়।

২০১৩ সালে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত এ কোম্পানির শেয়ার বর্তমানে লেনদেন হচ্ছে ‘এ’ ক্যাটাগরিতে।

গত কয়েক বছর ধরে লাভে থাকা ওরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালস ২০২০ অর্থবছরে ৬৬ কোটি ৫৬ লাখ টাকা মুনাফা দেখিয়েছিল; লভ্যাংশ দিয়েছিল শেয়ার প্রতি ১ টাকা ৫০ পয়সা।

পুঁজিবাজারে এ কোম্পানির ২৩ কোটি ৪০ লাখ শেয়ার আছে। এর মধ্যে ৩১ দশমিক ৯৮ শতাংশ আছে পরিচালকদের হাতে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাতে আছে ৩৯ দশমিক ৮০ শতাংশ শেয়ার, বিদেশিদের হাতে ১ দশমিক ১৪ শতাংশ শেয়ার এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে ২৭ দশমিক শূন্য ৮ শতাংশ শেয়ার আছে।

ওরিয়ন ফার্মাসিউটিক্যালসের বর্তমান বাজার মূলধন ১ হাজার ৯৫ কোটি ১২ লাখ টাকা। কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ২৩৪ কোটি টাকা; রিজার্ভের পরিমাণ ৭৫৫ কোটি ২২ লাখ টাকা।