পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

ভুল চরিত্রায়ন হচ্ছে ‘ইচ্ছাকৃতভাবে’, দাবি ফেইসবুকের

  • প্রযুক্তি ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-09-19 18:35:24 BdST

bdnews24
ছবি: রয়টার্স

স্পর্শকাতর তথ্য গোপন এবং ‘গুরুত্বপূর্ণ’ ব্যক্তিদের বিশেষ খাতির করার অভিযোগে সম্প্রতি ব্যাপক সমালোচনার মুখে পড়েছে ফেইসবুক। প্রতিষ্ঠানটির আনুষ্ঠানিক নীতিমালা, প্রতিশ্রুতি আর বাস্তব কার্যপ্রণালীর মধ্যে বিভিন্ন অসঙ্গতি উঠে এসেছে ওয়াল স্ট্রিট জার্নালে প্রকাশিত কয়েকটি প্রতিবেদনে। কিন্তু ফেইসবুক বলছে, এর সবই ‘উদ্দেশ্যপ্রণোদিত’।

বিশ্বের শীর্ষ সামাজিক মাধ্যমটি শনিবার দাবি করেছে, ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনগুলোতে “ইচ্ছাকৃতভাবে ভুল চরিত্রায়ন” করা হয়েছে তাদের; “ফেইসবুক নেতৃত্ব আর কর্মীদের উপর দোষ চাপানো হয়েছে মারাত্মক রকমের ভুল উদ্দেশ্যের কথা বলে”।

সম্প্রতি ফেইসবুকের বিভিন্ন অভ্যন্তরীণ নথি বিশ্লেষণ করে একাধিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্য ওয়াল স্ট্রিট জার্নাল। ওই নথির মধ্যে ছিলো প্রতিষ্ঠানটির নিজস্ব গবেষণার ফলাফল, কর্মীদের অনলাইন আলাপচারিতা এবং উচ্চস্তরের ব্যবস্থাপনার জন্য তৈরি একাধিক প্রেজেন্টেশন স্লাইডের ড্রাফট। “নিজস্ব প্ল্যাটফর্মের নেতিবাচক প্রভাব” চিহ্নিত করেও তার সমাধানে ফেইসবুক কোনো পদক্ষেপ নেয়নি বলে অভিযোগ তুলেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদপত্রটি।  

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের প্রতিবেদনে উঠে এসেছে, বিভিন্ন সময়ে রাজনীতিবিদ ও সেলিব্রেটিদের মতো ‘গুরুত্বপূর্ণ’ ব্যক্তিদের বিশেষ খাতির করতে নিজস্ব নিয়ম-নীতির ব্যত্যয় ঘঠিয়েছে ফেইসবুক, কমিয়ে বলেছে কিশোর বয়সীদের উপর ইনস্টাগ্রাম অ্যাপের নেতিবাচক প্রভাব; এমনকি প্ল্যাটফর্মটি বিভিন্ন উন্নয়নশীল দেশে মানবপাঁচারের কাজে ব্যবহার হচ্ছে-- নিজস্ব কর্মীরা এমনটা জানালেও তাতে গুরুত্ব দেয়নি প্রতিষ্ঠানটির শীর্ষ কর্মকর্তারা।

ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের ওই প্রতিবেদনগুলোর প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ফেইসবুকের বৈশ্বিক সম্পর্কবিষয়ক ভাইস প্রেসিডেন্ট নিক ক্লেগ এক ব্লগ পোস্টে লিখেছেন, “এতে আমরা যা করার চেষ্টা করছি তার ইচ্ছাকৃত ভুল চরিত্রায়ন করা হয়েছে এবং ফেইসবুক নেতৃত্ব এবং কর্মীদের উপর দোষ চাপানো হয়েছে মারাত্মক রকমের ভুল উদ্দেশ্যের কথা বলে।”

রয়টার্স জানিয়েছে, ওই ব্লগ পোস্টে “ফেইসবুক গবেষণা চালায় এবং এর  ফলাফল প্রতিষ্ঠানের জন্য অসুবিধাজনক হলে, ফেইসবুক পদ্ধতিগতভাবে এবং ইচ্ছাকৃতভাবে তা স্রেফ চেপে যায়”, এই অভিযোগ “সম্পূর্ণ মিথ্যা” বলে দাবি করেন ক্লেগ।

ফেইসবুক “একটি আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্ম চালাতে গেলে তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট দায়িত্বের গুরুভার” বোঝে এবং গুরুত্বের সঙ্গে নেয়; তবে, “আমরা আমাদের কাজের এই ভুল চরিত্রায়ন ও আক্রমণ মৌলিকভাবে প্রত্যাখ্যান করছি”-- লিখেছেন ক্লেগ।

কোভিড মহামারীর টিকা নিয়ে ভুয়া পোস্ট বিষয়ে ফেইসবুকের বিতর্কিত ভূমিকার পক্ষেও সাফাই গেয়েছেন ক্লেগ। “সামাজিক মাধ্যম আর সুস্থ্য জীবনের মধ্যকার সম্পর্ক” গবেষকদের জন্য এখনও একটি ক্রমবিকশমান বিষয় বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।