পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

আরো পেছালো অ্যাপলের এআর/ভিআর ডিভাইস?

  • প্রযুক্তি ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-18 19:22:04 BdST

bdnews24
প্রাপ্ত তথ্যের ভিত্তিতে অ্যাপলের এআর/ভিারি হেডসেটের সম্ভাব্য চেহারা তৈরি করেছেন নকশাবিদ অ্যান্টোনিও ডি রোসা

অ্যাপল এআর/ভিআর হেডসেট নিয়ে কাজ করছে, প্রযুক্তি পণ্যের বাজারে এমন গুঞ্জন চলছে অনেক দিন ধরেই। তবে, সংশ্লিষ্টদের দেওয়া সাম্প্রতিক তথ্য বলছে, আরো দীর্ঘ হতে চলেছে ডিভাইসটি নিয়ে আগ্রহীদের অপেক্ষা।

বিভিন্ন সূত্র থেকে খবর আসছিল, ২০২২ সালের জুন মাসে ‘ওয়ার্ল্ডওয়াইড ডেভেলপার্স কনফারেন্স (ডব্লিউডব্লিউডিসি)’-তে নতুন ‘মিক্সড রিয়ালিটি প্ল্যাটফর্মটি উন্মোচন করবে অ্যাপল।’ কিন্তু, ওই একই সূত্রগুলো এবার বলছে, কারিগরি জটিলতায় আরো পেছাচ্ছে ডিভাইসটির অভিষেক।

প্রযুক্তি শিল্পের ‘ভেতরের খবর’ রাখেন, এমন বেশ কয়েকটি সূত্র বলছেন, “২০২২ সালের শেষ নাগাদ অথবা ২০২৩ সালে” বাজারে অভিষেক হতে পারে ডিভাইসটির। এদের মধ্যে আছেন বাণিজ্য প্রকাশনা ব্লুমবার্গের সংবাদকর্মী মার্ক গারম্যানসহ  ‘নির্ভরযোগ্য তথ্য ফাঁসকারী’ হিসেবে পরিচিত পাওয়া বাজার বিশ্লেষক তাকাশি মোচিজুকি ও ডেবি উ।

অ্যাপলের এআর/ভিআর হেডসেট অভিষেক পিছিয়ে যাওয়ার কারণ হিসেবে বলা হচ্ছে ডিভাইস বেশি গরম হয়ে যাওয়াসহ ক্যামেরা ও সফটওয়্যার জটিলতার কথা। ২০২১ সালেই ডিভাইসগুলোর বাজারে অভিষেক হওয়ার কথা থাকলেও ওই একই কারণে পিছিয়ে গিয়েছিল সেই পরিকল্পনা। 

তবে, আলোচিত ডিভাইসগুলো অ্যাপলের কথিত ‘এআর গ্লাস’ নয় বলে জানিয়েছে প্রযুক্তিবিষয়ক সাইট আর্স টেকনিকা; ‘এআর গ্লাস’ বাজারজাতকরণের উপযোগী হতে আরো কয়েক বছর সময় লাগবে বলে জানিয়েছে সাইটটি। যে ডিভাইসটি নিয়ে বর্তমানে আলোচনা হচ্ছে, সেটি একটি মিক্সড রিয়ালিটি হেডসেট, অর্থাৎ ভার্চুয়াল ও অগমেন্টেড রিয়ালিটি– উভয় সক্ষমতা থাকবে ডিভাইসটির এবং দাম হবে অন্তত দুই হাজার ডলার। 

ডিভাইসটিতে ৪কে অথবা ৮কে ডিসপ্লে, উচ্চক্ষমতা সম্পন্ন এক্সটার্নাল ক্যামেরা, একাধিক সেন্সর এবং চিপ থাকবে বলে বিভিন্ন সময়ে দাবি করেছেন তথ্য ফাঁসকারীরা। ম্যাক কম্পিউটারের সাম্প্রতিক মডেলে ব্যবহৃত চিপসেট থাকার কথাও বলেছেন তারা। ডিভাইসটির নাম নিয়েও আছে অনিশ্চয়তা; ব্লুমবার্গের মার্ক গারম্যানের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ‘অ্যাপল ভিশন’ বা ‘অ্যাপল রিয়ালিটি’ নামকরণ করা হতে পারে ডিভাইসটির।

এআর/ভিআর প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করছে যে প্রতিষ্ঠানগুলো, অ্যাপল তার মধ্যে প্রথম নয়। এই খাতে অবস্থান তৈরির চেষ্টা করেও সুবিধা করে উঠতে পারেনি গুগল। ফেইসবুক গেল বড়দিনে ‘অকুলাস কোয়েস্ট টু’ নিয়ে সাফল্য পেলেও সৌখিন পণ্য হিসেবে গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে ডিভাইসটি, অতি প্রয়োজনীয় বা বাজারে নতুন বিপ্লবের জন্ম দেওয়া কোনো পণ্য হিসেবে নয়। প্রযুক্তিগত আর উৎপাদন প্রতিবন্ধকতার কারণেই প্রযুক্তি পণ্যের বাজারে এআর/ভিআর হেডসেটের বিস্তৃত বাজার গড়ে ওঠেনি এখনো।

তবে, এই প্রযুক্তি নিয়ে তৎপরতা থামিয়ে দিচ্ছে না প্রযুক্তি শিল্প। শীর্ষস্থানীয় প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে মাইক্রোসফট কাজ করছে উইন্ডোজ নির্ভর মিক্সড রিয়ালিটি প্ল্যাটফর্ম নিয়ে। গেইমারদের জন্য নির্মিত হচ্ছে ‘স্টিমভিআর’ প্ল্যাটফর্ম।

এই প্রযুক্তি এখনো প্রাথমিক অবস্থায় থাকায় বাজারে নতুন এআর গ্লাসের অভিষেকও ধীর গতিতে হচ্ছে বলে মন্তব্য আর্স টেকনিকার।