২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

বিশাল এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ক্যালিফোর্নিয়ার দাবানল ‘টমাস’

  • নিউজ ডেস্ক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2017-12-11 14:21:37 BdST

bdnews24

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক শহরের চেয়েও বড় এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে ক্যালিফোর্নিয়া অঙ্গরাজ্যের দাবানল।

বিবিসি জানিয়েছে, ‘টমাস ফায়ার’ নামাঙ্কিত ধ্বংসাত্মক এই দাবানলে রোববার পর্যন্ত দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ার ভেঞ্চুরা ও সান্তা বারবারা কাউন্টির দুই লাখ ৩০ হাজার একর বনাঞ্চল পুড়ে গেছে।

একদিনে ৫০ হাজার একরেরও বেশি এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার পর টমাস অঙ্গরাজ্যটির পঞ্চম বৃহত্তম দাবানল হিসেবে রেকর্ডবুকে স্থান করে নিয়েছে। একদিনে এত বিশাল এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়ার ক্ষেত্রে জোরালো বাতাস প্রধান ভূমিকা রেখেছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

দাবানল ছড়িয়ে পড়ার মুখে উপকূলীয় সৈকতসংলগ্ন বসতিগুলোর বাসিন্দাদের এলাকা ছেড়ে চলে যাওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।    

দমকল কর্মীরা জানিয়েছেন, ১৫ শতাংশের মতো আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা গেলেও দাবানলটির ছড়িয়ে পড়ার মুখে তা ধরে রাখা যায়নি। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত তারা মাত্র ১০ শতাংশ আগুন নিয়ন্ত্রণে রাখতে পেরেছিলেন। 

দাবানলটিতে এ পর্যন্ত একজনের মৃত্যু হয়েছে। ৭০ বছর বয়সী এক নারীকে তার গাড়ির ভিতরে মৃত অবস্থায় পাওয়া গেছে। এলাকা ছাড়ার সময় পথেই মারা যান তিনি।

এছাড়া বেশ কয়েকজন দমকল কর্মীও আহত হয়েছেন।

দাবানলে ক্যালিফোর্নিয়ার শত শত কোটি ডলারের কৃষিশিল্প মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে বলেও আশঙ্কা করা হচ্ছে।  

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, সোমবার সারাদিনই বাতাসের বেগ বৃদ্ধি পাবে, কিন্তু রাতে বাতাস থেমে যাবে।

গত সাতদিন ধরে দাবানলের সঙ্গে লড়াই করছে ক্যালিফোর্নিয়া। গত সোমবার রাতে দক্ষিণ ক্যালিফোর্নিয়ায় ছয়টি বড় ধরনের ও ছোট একটি দাবানল থেকে এটি শুরু হয়।

টমাস অ্যাকুইনাস কলেজের কাছে উৎপত্তি হওয়ায় দাবানলটির নাম ‘টমাস ফায়ার’ রাখা হয়েছে।

শুষ্ক আবহাওয়া, প্রবল বাতাস ও শুকনো জমির কারণে উৎপত্তির কয়েক ঘন্টার মধ্যে দাবানলটি হাজার হাজার একর এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে।

অঙ্গরাজ্য কর্তৃপক্ষ সর্বোচ্চ সতর্কতা ‘পার্পল অ্যালার্ট’ জারি করে। জরুরি অবস্থা জারি করেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। 

৪ ডিসেম্বর থেকে শুরু হওয়া এই দাবানলে এরমধ্যে কয়েকশ ভবন ধ্বংস হয়ে গেছে; দুই লাখ মানুষকে তাদের এলাকা থেকে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

দাবানলের হুমকি মধ্যে থাকায় রোববার রাতে লস অ্যাঞ্জেলস শহর থেকে ১৬০ কিলোমিটার উত্তর-পশ্চিমে লস পাড্রেস ন্যাশনাল ফরেস্টের নিকটবর্তী কার্পেন্টেরিয়া শহরের কয়েকটি অংশের বাসিন্দাদের এলাকা ছাড়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।