ক্রাইস্টচার্চ হামলা: ৫১ খুনের দায় স্বীকার ট্যারেন্টের

  • নিউজ ডেস্ক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-03-26 12:24:08 BdST

bdnews24
ক্রাইস্টচার্চ শহরের দুই মসজিদে নির্বিচার গুলি চালিয়ে ৫১ জনকে খুনের দায় স্বীকার করেছেন অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারেন্ট। ফাইল ছবি: রয়টার্স

এক বছর আগে নিউ জিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চ শহরের দুই মসজিদে নির্বিচার গুলি চালিয়ে ৫১ জনকে খুনের দায় স্বীকার করেছেন অস্ট্রেলীয় নাগরিক ব্রেন্টন ট্যারেন্ট।

ট্যারেন্ট আরও ৪০ জনকে খুনের চেষ্টা ও সন্ত্রাসবাদের দায়ও স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।

এর আগে এসব অভিযোগ অস্বীকার করেছিলেন ২৯ বছর বয়সী এ শ্বেতাঙ্গ বর্ণবাদী।

গত বছরের ১৫ মার্চ দেশটির ক্রাইস্টচার্চ শহরের দুটি মসজিদে জুমার নামাজে আসা মুসল্লীদের ওপর সশস্ত্র বন্দুকধারী ট্যারেন্ট আধা-স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়। ট্যারেন্ট তার হামলার দৃশ্য সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেইসবুকে সরাসরি সম্প্রচারও করে।

ওই হামলাকে নিউ জিল্যান্ডে শান্তিকালীন সময়ের সবচেয়ে বড় ‘নির্বিচার হত্যা’ হিসেবে অভিহিত করা হয়। ওই হামলায় পুরো বিশ্ব স্তম্ভিত হয়। এই হত্যাকাণ্ডের জেরে নিউ জিল্যান্ড বন্দুক আইন কঠোর করা হয়।

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে মহামারির রূপ নেওয়া নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে নিউ জিল্যান্ড এখন লকডাউন অবস্থায় আছে। এ পরিস্থিতিতে বৃহস্পতিবার ক্রাইস্টচার্চ হাই কোর্টে এক সংক্ষিপ্ত শুনানিতে ওই অভিযোগগুলোর দায় স্বীকার করেন ট্যারেন্ট।

শুনানিতে জনসাধারণের কাউকে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেওয়া হয়নি। ট্যারেন্ট ও তার আইনজীবী ভিডিও লিঙ্কের মাধ্যমে শুনানিতে উপস্থিত ছিলেন। 

হামলার ঘটনায় আহত ও হতাহতদের পরিবারের প্রতিনিধিত্ব করার জন্য আক্রান্ত দুই মসজিদের একজন প্রতিনিধিকে শুনানিতে উপস্থিত থাকার অনুমতি দেওয়া হয়।

শুনানিকালে বিচারপতি ক্যামেরন ম্যান্ডার বলেন, “এটি দুঃখজনক, যখন আসামি দোষ স্বীকার করলো তখন বর্তমানে আরোপ করা কভিড-১৯ বিধিনিষেধের কারণে আহত ও হতাহতদের পরিবারের সদস্যরা আদালতে উপস্থিত থাকতে পারলোনা।”

ট্যারেন্টের বিরুদ্ধে হওয়া ৯২টি মামলার রায়ের দিন নির্ধারিত হয়নি। আদালত ১ মে পর্যন্ত ট্যারেন্টকে হেফাজতে রাখার নির্দেশ দিয়ে ওই সময়ের মধ্যে রায়ের একটি দিন নির্ধারিত করতে পারবে বলে আশা প্রকাশ করেছে।

বিচারপতি ম্যান্ডার বলেন, “আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম শুরু না হওয়া পর্যন্ত এবং আহত ও হতাহতদের পরিবারের সদস্যরা স্বশরীরে আদালতে উপস্থিত থাকতে পারার মতো পরিস্থিতি না হওয়া পর্যন্ত আসামিকে সাজা দেওয়ার কোনো উদ্দেশ্য নেই।”

ক্রাইস্টচার্চের আল নুর মসজিদে হামলায় নিহত হুসনার স্বামী ফরিদ আহমেদ টিভিএনজেড-কে হামলাকারীর বিষয়ে বলেন, “আমি তার জন্য দোয়া করছি, সে ঠিক পথটাই গ্রহণ করেছে। সে অপরাধবোধ করছে এতে আমি সন্তুষ্ট, শুরু হিসেবে এটা ভালো।”