আম্পানে বিধ্বস্ত কলকাতায় পানি-বিদ্যুতের দাবিতে অবরোধ

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-22 20:28:06 BdST

bdnews24

ভয়ঙ্কর ঘূর্ণিঝড় আম্পানের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড কলকাতা যাতায়াত, যোগাযোগ বন্ধ হয়ে কার্যত বিচ্ছিন্ন। এরই মধ্যে পানি, বিদ্যুতের দাবিতে শহরের বিভিন্ন প্রান্তে শুরু হয়েছে বিক্ষোভ, অবরোধ।

বুধবার সন্ধ্যায় প্রবল গতিতে শহরের ওপর দিয়ে চলে গেছে আম্পান। কিন্তু তার রেশ এখনো হাড়েহাড়ে টের পাচ্ছে কলকাতাসহ আশেপাশের জেলার বাসিন্দারা। ঝড়ের সময় বিদ্যুৎ চলে গেলেও তা এখনও ফেরেনি।

তাই শুক্রবার শহরটিতে জেনারেটর আর মোমবাতির চাহিদাই দেখা গেছে সবচেয়ে বেশি। কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় ঝড়ে পড়া গাছ ফেলে মানুষ বিদ্যুতের দাবিতে অবরোধ করেছে।

রাজ্য বিদ্যুৎ দপ্তরের কর্মীরাও এ পরিস্থিতিতে নিরুপায়। একে লকডাউন, তার উপর আম্পানের ধাক্কার কারণে এখনও অনেক জায়গায় পৌঁছতে পারছেন না তারা। বিভিন্ন রাস্তায় বড় বড় গাছ, ট্রাফিক সিগন্যাল পোস্ট উপড়ে পড়ে থাকায় শহরের একখান থেকে অন্যখানে যাওয়া দুঃসাধ্য হয়ে উঠেছে।

 বিদ্যুৎ না থাকার পাশাপাশি শহরে পৌঁছচ্ছে না পানিও। শহর জুড়ে হাহাকার। শহরবাসীদের অভিযোগ, দু’দিন হয়ে গেল তারা পানি, আলো পাচ্ছেন না। মোবাইলে সংযোগও খারাপ হয়ে পড়েছে। দুর্বল নেটওয়ার্কের কারণে কারো সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারছেন না তারা।

এ পরিস্থিতিতেই বেহালার বিভিন্ন এলাকায় শুক্রবার সকাল থেকে শুরু হয় রাস্তা অবরোধ। স্থানীয়রা ক্ষুব্ধ হয়ে নেমে আসেন রাস্তায়। আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়, টালিগঞ্জ, গড়িয়া থেকে যাদবপুর ও উত্তর কলকাতার বিভিন্ন জায়গায় পানি এবং বিদ্যুতের দাবিতে বিক্ষোভ হয়েছে।

টালিগঞ্জ সার্কুলার রোড অবরোধ করেছেন সেখানকার বাসিন্দারা। তাদের দাবি, অবিলম্বে রাস্তায় পড়ে থাকা গাছ সরাতে হবে। বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে হবে। পানির ব্যবস্থা করতে হবে। যতক্ষণ পর্যন্ত দাবি না মিটবে, তারা অবরোধ চালাবেন।

আরও বেশ কয়েকটি জায়গায় এদিন অবরোধ হয়েছে। প্রশাসন এবং পৌরসভা নিষ্ক্রিয় অভিযোগ তুলে বিক্ষোভ করে স্থানীয়রা। কোনো কোনো জায়গায় বিশাল আকারের গাছ পড়ে গিয়ে অবরুদ্ধ হয়েছে রাস্তা। গাড়ি চলাচল বন্ধ। দু’দিন হয়ে গেল সেই গাছ সরানোর উদ্যোগ দেখা যায়নি বলে অভিযোগ বাসিন্দাদের।

 অনেক এলাকা এখনও জলমগ্ন। ব্যাঙ্কের সামনে পড়ে আছে গাছ। মানুষ ব্যাঙ্কে গিয়ে টাকাও তুলতে পারছে না। বিভিন্ন অঞ্চলে বিদ্যুৎ না থাকায় পাম্পে করে পানি রিজার্ভারে তোলা যাচ্ছে না। ফলে পানির সংকট তৈরি হয়েছে। রাস্তায় কল অধিকাংশই ভাঙা থাকায় সেখান থেকেও পানি পাওয়া যাচ্ছে না।

শহরকে পুরোনো চেহারায় ফিরিয়ে আনতে কলকাতা পুলিশের বিপর্যয় মোকাবিলা বাহিনী মাঠে নেমেছে। প্রশাসন আশ্বাস দিয়ে বলেছে, বিপর্যয় কাটিয়ে উঠতে সব রকম ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। শহরবাসীকে তারা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার জন্য ধৈর্য্য ধরার আহ্বান জানিয়েছেন।