ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থা সঙ্কটজনক

  • নিউজডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-08-11 23:40:21 BdST

bdnews24

করোনাভাইরাস আক্রান্ত ভারতের সাবেক রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের অবস্থা সঙ্কটজনক বলে জানিয়েছেন তার চিকিৎসকরা। মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচারের পর তাকে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছে।

দিল্লির ‘দ্য আর্মিস রিসার্চ অ্যান্ড রেফারাল’ (আরঅ‌্যান্ডআর) হাসপাতালে প্রণবের চিকিৎসা চলছে। মঙ্গলবার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায়, ‘‘প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শারীরিক ‍অবস্থা এখনও সঙ্কটজনক।”

গত ১০ অগাস্ট জরুরি ভিত্তিতে প্রবণের মস্তিষ্কে অস্ত্রোপচার করা হয়। তারপর থেকে তার অবস্থার কোনো উন্নতি হয়নি। তার অবস্থা খারাপের দিকে বলে জানিয়েছে ‘টাইমস অব ইন্ডিয়া’।

আনন্দবাজার পত্রিকা জানায়,  রোববার রাতে ৮৪ বছর বয়সী প্রণব বাথরুমে পড়ে গিয়ে মাথায় আঘাত পান। আঘাতে রক্তপাত না হলেও পরদিন সকাল থেকে তিনি বাঁ হাত নাড়াতে পারছিলেন না।

শারীরিক ‍অবস্থার আরও অবনতি হলে মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে তাকে ‘আর অ‌্যান্ড আর’ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এবং সেখানে পরীক্ষা-নিরীক্ষায় মস্তিষ্কে জমাট রক্ত দেখতে পাওয়া যায়। সেখানে অস্ত্রোপচারের আগের স্বাস্থ্য পরীক্ষায় প্রণবের করোনাভাইস সংক্রমণও ধরা পড়ে।

চিকিৎসকরা দ্রুত অস্ত্রোপচারের সিদ্ধান্ত নেন এবং সোমবার রাতেই অস্ত্রোপচার হয়। তারপর থেকে তিনি ভেন্টিলেশনে আছেন। প্রণব দীর্ঘদিন ধরে ডায়বেটিসে ভুগছেন।

প্রণবের শারীরিক অবস্থার উপর নজর রাখতে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের নিয়ে একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করেছে রিসার্চ এন্ড রেফারেল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। মঙ্গলবার সকালে তার ছেলে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় আনন্দবাজার পত্রিকাকে জানিয়েছিলেন, অবস্থা সঙ্কটজনক হলেও চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন তার বাবা।

ভারতের সর্বোচ্চ বেসামরিক খেতাব ‘ভারত রত্ন’ পাওয়া এই রাজনীতিবিদ ২০১২ থেকে ২০১৭ পর্যন্ত দেশটির রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন।

প্রণবের পরিবারের অন্যান্য সদস্যদেরও করোনাভাইরাসের পরীক্ষা করা হয়েছে। তাদের ফল নেগেটিভ এসেছে।

সোমবার করোনাভাইরাস পরীক্ষার ফল ‘পজিটিভ’ আসার পর প্রণব নিজেই এক টুইটে গত এক সপ্তাহে তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের আইসোলেশনে থাকা এবং কোভিড-১৯ পরীক্ষার অনুরোধ জানান।

প্রণবের সুস্থতা কামনা করে বহু মানুষ টুইট করেছেন। তাদের মধ্যে ভারতের বর্তমান রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, কংগ্রেস নেতা রাহুল গান্ধীও রয়েছেন।