পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

‘অপরাজেয় সামরিক বাহিনী’ গড়ার প্রত্যয় কিম জং উনের

  • নিউজ ডেস্ক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-10-12 17:47:10 BdST

bdnews24
একটি বিরল প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে বিভিন্ন ধরনের দীর্ঘ-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরিবেষ্টিত অবস্থায় কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাষ্ট্রের শত্রুতামূলক নীতির মুখে ‘অপরাজেয় সামরিক বাহিনী’ গড়ার প্রত্যয় জানিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং উন।

দেশটির রাষ্ট্রায়ত্ত গণমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, যুদ্ধ শুরুর জন্য নয়, উত্তর কোরিয়ার অস্ত্র উৎপাদন আত্মরক্ষার জন্য বলে মন্তব্য করেছে তিনি। 

একটি বিরল প্রতিরক্ষা প্রদর্শনীতে বিভিন্ন ধরনের দীর্ঘ-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরিবেষ্টিত অবস্থায় তিনি এসব মন্তব্য করেন বলে জানিয়েছে বিবিসি। 

উত্তর কোরিয়া সম্প্রতি নতুন হাইপারসনিক ও বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা করার দাবি করেছে।

ইতোমধ্যে দক্ষিণ কোরিয়া তাদের নিজেদের তৈরি ডুবোজাহাজ থেকে উৎক্ষেপণযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্রের পরীক্ষা চালিয়েছে। 

রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে অনুষ্ঠিত ‘আত্মরক্ষামূলক ২০২১’ প্রদর্শনীতে দেওয়া বক্তব্যে কিম দক্ষিণ কোরিয়ার সমরাস্ত্র নির্মাণের কথা উল্লেখ করে জানান, উত্তর কোরিয়া তার প্রতিবেশীর সঙ্গে লড়াই করতে চায় না।

“আমরা কারও সঙ্গে যুদ্ধ করার কথা আলোচনা করছি না, বরং আক্ষরিক অর্থে যুদ্ধকে প্রতিরোধ করতে এবং জাতীয় সার্বভৌমত্ব রক্ষার জন্য যুদ্ধ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বৃদ্ধির চেষ্টা করছি,” বলেন তিনি।

উত্তর ও দক্ষিণ কোরিয়ার মধ্যে উত্তেজনা বৃদ্ধির জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে দায় দিয়েছেন কিম। 

যুক্তরাষ্ট্র শত্রুভাবাপন্ন নয়, উত্তর কোরিয়ার এমন বিশ্বাস করার মতো ‘কোনো আচরণগত ভিত্তি’ নেই বলে অনুযোগ করেন তিনি। 

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের যুক্তরাষ্ট্র বারবার বলে আসছে, তারা উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে কথা বলতে ইচ্ছুক, কিন্তু নিষেধাজ্ঞা শিথিল করতে পিয়ংইয়ংকে তাদের পারমাণবিক অস্ত্র ত্যাগ করতে হবে বলে দাবি করে আসছে। কিন্তু উত্তর কোরিয়া যুক্তরাষ্ট্রের এসব প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।

উত্তর কোরিয়ার ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র ও পারমাণবিক অস্ত্র পরীক্ষার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে রেখেছে জাতিসংঘ। কিন্তু দেশটি ধারাবাহিকভাবে এসব নিষেধাজ্ঞা অমান্য করায় ব্যাপক নিষেধাজ্ঞার মুখে পড়েছে।