পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কোভিড: জার্মানিতে টিকা না নেওয়াদের ওপর ব্যাপক বিধিনিষেধ

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-12-03 16:04:59 BdST

bdnews24
ছবি রয়টার্স থেকে নেওয়া

কোভিড-১৯ এর চতুর্থ ঢেউ মোকাবেলায় টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের নির্বিঘ্নে চলাচল সীমিত করতে ব্যাপক বিধিনিষেধ আরোপে সম্মত হয়েছে জার্মানির কেন্দ্রীয় ও আঞ্চলিক নেতারা।

বিস্তৃত এ বিধিনিষেধকে ‘জাতীয় সংহতির’ একটি পদক্ষেপ হিসেবে অভিহিত করেছেন কয়েকদিনের মধ্যে চ্যান্সেলর পদ থেকে বিদায় নিতে যাওয়া আঙ্গেলা মের্কেল।

নতুন পদক্ষেপের ফলে টিকা নেওয়া ব্যক্তি এবং মাত্রই কোভিড থেকে সুস্থ হয়ে ওঠারাই কেবল রেস্তোরাঁ, সিনেমা হল, বিনোদন কেন্দ্র ও বেশিরভাগ দোকানপাটে যেতে পারবেন বলে জানিয়েছে বিবিসি।  

জার্মানিতে ফেব্রুয়ারির মধ্যে সবার জন্য টিকা বাধ্যতামূলক হতে পারে বলেও মের্কেল জানিয়েছেন।

জার্মানিতে এখন পর্যন্ত কোভিডের যত ঢেউ এসেছে, তার মধ্যে চতুর্থ ঢেউই সবচেয়ে মারাত্মক হয়ে দেখা দিয়েছে; সর্বশেষ ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে দেশটিতে মৃত্যু হয়েছে ৩৮৮ জনের।

এর মধ্যে নতুন আতঙ্ক হয়ে হাজির হয়েছে ওমিক্রন ভ্যারিয়েন্ট; আগামী কয়েক মাসের ভেতর শনাক্ত সব কোভিড রোগীর মধ্যে অর্ধেকেরও বেশির দেহে ওমিক্রন পাওয়া যেতে পারে বলে ধারণা করছেন ইউরোপীয় ইউনিয়নের স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা।

“চতুর্থ ঢেউকে ভেঙে দেওয়া দরকার, কিন্তু এখনও তা অর্জন করা যায়নি। এই পরিস্থিতিতে আমার মনে হয় টিকাদান বাধ্যতামূলক করার প্রস্তাব গ্রহণ করাই হবে উপযুক্ত হবে,” বলেছেন মের্কেল। অবশ্য এমনটা বললেও টিকা বাধ্যতামূলক করার ক্ষেত্রে প্রস্তাবটি যে পার্লামেন্টে অনুমোদন পেতে হবে তাও স্পষ্ট করেছেন তিনি।

মের্কেলের জায়গায় বুধবার চ্যান্সেলর পদে বসতে যাওয়া ওলাফ শলৎস আগেই এই প্রস্তাবে কার সমর্থনের কথা জানিয়েছেন। কয়েক সপ্তাহ আগে অস্ট্রিয়াও সবার টিকা নেওয়া বাধ্যতামূলক করেছে।

টিকা না নেওয়াদের ওপর ব্যাপক নিষেধাজ্ঞাকে ‘লকডাউন’ অ্যাখ্যা দেওয়া হয়নি, যদিও জার্মানির বিদায়ী স্বাস্থ্যমন্ত্রী আগে একবার টিকা না নেওয়াদের ওপর ‘আধা লকডাউন’ দেওয়া হতে পারে বলে জানিয়েছিলেন। 

যেসব বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়েছে, তার বেশিরভাগ বেশ কয়েকটি জার্মান রাজ্যে আছেও। গত ছয় মাসের মধ্যে কোভিড থেকে সুস্থ হয়েছেন এবং টিকা নিয়েছেন এমন ব্যক্তিদের ছাড় দেওয়া এসব বিধিনিষেধ নাম পেয়েছে টুজি নীতি হিসেবে। 

জার্মানির কেন্দ্রীয় ও আঞ্চলিক নেতারা যেসব বিধিনিষেধের ব্যাপারে একমত হয়েছেন, তার মধ্যে আছে টিকা না নেওয়া ব্যক্তিরা তাদের পরিবারের সদস্যদের বাইরে আর মাত্র দুইজনের সঙ্গে মিশতে পারবেন।

গত ছয় মাসের মধ্যে সুস্থ এবং টিকা নিয়েছেন এমন ব্যক্তি ছাড়া কেউ রেস্তোরাঁ, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানস্থল এবং অতি প্রয়োজনীয় দোকান ছাড়া অন্য দোকানে যেতে পারবেন না। গত ৭ দিনে প্রতি এক লাখ মানুষের মধ্যে সাড়ে তিনশ রোগী শনাক্ত হয়েছে এমন এলাকাগুলোর ক্লাব বন্থ থাকবে।

বড়দিনের মধ্যে ৩ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হবে। বুন্দেসলিগা ফুটবলসহ চার দেওয়ালের বাইরের অনুষ্ঠানগুলোতে সর্বোচ্চ ১৫ হাজার মানুষ হাজির হওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে এবং সেখানেও টিকা গ্রহণকারী ও গত ছয় মাসের মধ্যে কোভিড থেকে সুস্থ হয়েছেন কেবল এরাই থাকতে পারবেন।

নতুন বিধিনিষেধে খ্রিস্টীয় নববর্ষের প্রাক্কালে বাজি পোড়ানোতেও নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।

সাম্প্রতিক সময়ে জার্মানিতে টিকাদানের পরিমাণ বাড়লেও এখন পর্যন্ত দেশটির মোট জনসংখ্যার মাত্র ৬৮ দশমিক ৭ শতাংশ টিকার সব ডোজ পেয়েছে, যা পশ্চিম ইউরোপের অনেক দেশের তুলনায় কম।