পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়, সু চিকে নিয়ে বললেন জান্তার মন্ত্রী

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-12-07 16:52:42 BdST

bdnews24
অং সান সু চি। ফাইল ছবি: রয়টার্স

কেউই যে আইনের ঊর্ধ্বে নয়, অং সান সু চির কারাদণ্ডে তা-ই প্রমাণিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন মিয়ানমারের সামরিক জান্তার তথ্যমন্ত্রী মং মং ও’ন।

মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল ব্রিফিংয়ে তিনি বলেছেন, সেনাপ্রধান ‘মানবিক কারণেই’ সু চির সাজা ৪ বছর থেকে কমিয়ে ২ বছর করেছেন।

উসকানি ও কোভিড বিধি ভাঙ্গার দায়ে মিয়ানমারের একটি আদালত ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) নেত্রী সু চিকে কারাদণ্ড দেওয়ার একদিন পর জান্তার কোনো ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা এ বিষয়ে মুখ খুললেন বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।  

মং মং ও’ন বলেন, মিয়ানমারের বিচারব্যবস্থা পক্ষপাতশূন্য এবং নোবেল জয়ী ও দেশের সাবেক নেতার বিচার আইন অনুযায়ীই হয়েছে।

“কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়,” বলেছেন তিনি।

মঙ্গলবার যে বিরল মিডিয়া ব্রিফিংয়ে মং মং ও’ন হাজির হয়েছিলেন সেখানে জান্তার বিনিয়োগ মন্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন। ব্রিফিংয়ে তারা মিয়ানমারের অবস্থা স্থিতিশীল বলেও দাবি করেন। 

চলতি বছরের ১ ফেব্রুয়ারি মিয়ানমারের সেনাবাহিনী গণতান্ত্রিক সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা নিজেদের হাতে তুলে নেয়; সু চি ও তার সরকারের বেশিরভাগ সদস্যকে বন্দি করে।

এরপর দেশটিতে অভ্যুত্থানবিরোধী টানা আন্দোলন দেখা যায়; আন্দোলন রুখতে সেনাবাহিনীও ব্যাপক দমনপীড়নের আশ্রয় নেয়।

মিয়ানমারের ঘটনাবলীর ওপর নজর রাখা গোষ্ঠী অ্যাসিস্ট্যান্স অ্যাসোসিয়েশন ফর পলিটিকাল প্রিজনার্সের তথ্য অনুযায়ী, ফেব্রুয়ারির অভ্যুত্থানের পর এখন পর্যন্ত দেশটির নিরাপত্তা বাহিনীর হাতে ১ হাজার ২০০-র বেশি আন্দোলনকারী নিহত হয়েছে।   

অভ্যুত্থানের পর থেকে এ পর্যন্ত বন্দি সু চির বিরুদ্ধে দুর্নীতি, সরকারি গোপনীয়তা আইন লঙ্ঘনসহ ১১টি মামলা হয়েছে। সবগুলোতে দোষী সাব্যস্ত হলে নোবেলজয়ী এ নেত্রীর সর্বোচ্চ ১০০ বছরের বেশি কারাদণ্ড হতে পারে।

এর মধ্যে প্রথম রায়ে সোমবার মিয়ানমারের একটি আদালত তাকে চার বছরের কারাদণ্ড দেয়।

সু চির ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্র্যাসি (এনএলডি) দলের অন্যতম নেতা ও ক্ষমতাচ্যুত প্রেসিডেন্ট উয়িন মিন্টকেও একই অভিযোগে বিচারের মুখোমুখি করা হয় এবং তাকেও একই সাজা দেওয়া হয়।

পরে সু চির সাজার রায় কমিয়ে ২ বছর করার কথা জানায় মিয়ানমার টিভি।