পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

ইউক্রেইনে ট্যাংক-বিধ্বংসী অস্ত্র সরবরাহের ঘোষণা যুক্তরাজ্যের

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-18 14:49:34 BdST

bdnews24
সামরিক মহড়ায় ইউক্রেইনের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা। ছবি: রয়টার্স

যুক্তরাজ্য জানিয়েছে, রাশিয়ার সঙ্গে অচলাবস্থা চলার মধ্যে সম্ভাব্য আ্গ্রাসন থেকে আত্মরক্ষায় ইউক্রেইনকে সহায়তা করতে দেশটিতে ট্যাংক-বিধ্বংসী অস্ত্র সরবরাহ শুরু করেছে তারা।

সম্প্রতি ইউক্রেইন সীমান্তের কাছে প্রচুর সেনা জড়ো করেছে রাশিয়া। রাশিয়া ইউক্রেইনে নতুন করে হামলা চালানোর অজুহাতের প্রস্তুতি নিচ্ছে, পশ্চিমা দেশগুলো এমন আশঙ্কা প্রকাশ করেছে। এর আগে ২০১৪ সালে দেশটিতে সামরিক অভিযান চালিয়েছিল রাশিয়া।

কিন্তু এ ধরনের হামলার কোনো পরিকল্পনা নেই বলে দাবি করেছে রাশিয়া। তারপরও দেশটি বলেছে, পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে পাঠানো তালিকা অনুযায়ী দাবিগুলো পূরণ না হলে তারা অনির্ধারিত সামরিক পদক্ষেপ নিতে পারে।

ইউক্রেইনকে নেটোতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে না, পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে এমন প্রতিশ্রুতি চাইছে রাশিয়া; পূর্ব ইউরোপ থেকে মার্কিন নেতৃত্বাধীন সামরিক এ জোটকেও পিছু হটতে বলছে তারা। এ নিয়ে গত সপ্তাহে শেষ হওয়া আলোচনা কোনো ফলাফল ছাড়াই শেষ হয়েছে। এ পরিস্থিতিতে ইউক্রেইন পশ্চিমা দেশগুলোর কাছে তাদের আত্মরক্ষায় সহায়তা করতে অস্ত্র চেয়েছে বলে বার্তা সংস্থা রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে।

এ বিষয়ে সোমবার যুক্তরাজ্যের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বেন ওয়ালেস পার্লামেন্টকে বলেন, “আমরা ইউক্রেইনকে সাঁজোয়া যান ও ট্যাঙ্কবিরোধী হালকা প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র সরবরাহ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

তিনি জানান, সোমবার প্রথম ধাপের অস্ত্রগুলো পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে এবং অল্প সংখ্যক ব্রিটিশ সেনা সদস্য স্বল্পকালীন প্রশিক্ষণও দেবে।

তবে তিনি পাঠানো অস্ত্রের পরিমাণ ও ধরন সম্পর্কে কোন স্পষ্ট ধারণা দেননি। শুধু বলেছেন, “এগুলো কৌশলগত কোনো অস্ত্র নয় এবং রাশিয়ার জন্য কোনো হুমকিও তৈরি করবে না। এগুলো শুধু আত্মরক্ষার কাছে ব্যবহারের জন্য।

“এগুলো স্বল্প-পাল্লার, কিন্তু তবুও এগুলো লোকজনকে থামিয়ে দেবে এবং তারা কী করছে তা চিন্তা করতে বাধ্য করবে আর যদি ইউক্রেইনে ট্যাংক ঢুকে পড়ে, হামলা চালায়, তাহলে এগুলো প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার অংশ হবে।" 

ইউক্রেইনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওলেক্সি রেজনিকভ ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ঘোষণাকে স্বাগত জানিয়েছেন।

এক টুইটে তিনি বলেন,“ব্রিটেনের অ্যান্টি-আর্মার, প্রতিরক্ষামূলক অস্ত্র ব্যবস্থাসহ একটি নতুন নিরাপত্তা প্যাকেজ দেওয়ার সিদ্ধান্তকে ইউক্রেন স্বাগত জানায়!”

এর আগে ‍ব্রিটেন ইউক্রেইনে ‘রাশিয়া তাদের সম্ভাব্য সামরিক হামলা’ চালালে কঠোর ফল ভোগ করতে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছিল। ইউক্রেইনের নৌবাহিনীর সক্ষমতা বাড়ানোর ক্ষেত্রেও ব্রিটেন সহযোগিতা করছে।

ওয়ালেস রাশিয়ার প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শইগুকে লন্ডন সফরের জন্য আহ্বান জানান। তবে রাশিয়া তা গ্রহণ করবে কী না তা নিশ্চিত নন ওয়ালেস।

ওয়ালেস বলেন, সাম্প্রতিক সমস্যার পরিধিটা একটু বিস্তৃত হলেও তা সমাধানযোগ্য। কূটনীতির বিজয় সুনিশ্চিত জানিয়ে তিনি বলেন, “প্রেসিডেন্ট পুতিনও (ভ্লাদিমির) এটা চান।”

রাশিয়াও বলছে, আলোচনা ‘অচলাবস্থায় পৌঁছালেও’ এখনি কূটনৈতিক সমাধানের চেষ্টা ছেড়ে দিচ্ছে না তারা। তবে উত্তেজনা প্রশমিত না হলে বিকল্প পদক্ষেপ কী হতে পারে, তা নিয়ে সামরিক বিশ্লেষকরা প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছেন।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের এক কর্মকর্তাও ইউক্রেইনে অভিযানের অজুহাত সৃষ্টিতে রাশিয়া উসকানিমূলক কর্মকাণ্ড মঞ্চস্থের ‘ষড়যন্ত্র’ করছে বলে অভিযোগ করেছিলেন।

আরও খবর

ইউক্রেইনে ‘আগ্রাসন চালাতে নিজেদের ওপর হামলার পরিকল্পনা’ রাশিয়ার  

ইউক্রেইন নিয়ে আলোচনা ‘অচলাবস্থায়’, যুদ্ধের ঝুঁকি দেখছে পোল্যান্ড