পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কোভিড টিকা নেবেন না, গাছে উঠলেন তিনি

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-20 20:02:01 BdST

bdnews24
ছবি: এনডিটিভি ভিডিও

ভারতে করোনাভাইরাসের টিকা কর্মসূচির সচেতনতা বাড়াতে উত্তর প্রদেশের বাল্লিয়া জেলায় যায় স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের একটি দল। প্রত্যন্ত একটি গ্রামে গিয়ে মানুষের মধ্যে টিকা নেওয়ায় চরম অনীহাই দেখতে পেয়েছেন তারা।

মঙ্গলবার স্বাস্থ্য কর্মকর্তাদের ধারণ করা কয়েকটি ভিডিওয় ধরা পড়েছে সাধারণ মানুষের মধ্যে কোভিড টিকা নিয়ে এই অনীহা। একটি ভিডিওতে দেখা গেছে, টিকা নেওয়া এড়াতে এক ব্যক্তি গাছে চড়ছেন।

স্বাস্থ্যকর্মীরা অনেক অনুরোধ করার পরও তিনি নিচে নামেননি। গাছে থেকেই তিনি বলেন, “আমি নিচে আসব না। আমি টিকা নেব না; আমার ভয় করছে।” তবে শেষ পর্যন্ত স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে সহাযোগিতা করেন ওই ব্যক্তি।

আরেকটি ভিডিওয় অন্য আরকেজনকে টিকা না দেওয়ার জন্য মাটিতে স্বাস্থ্যকর্মীদের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করতে দেখা গেছে। দৌড়ে পালিয়ে যেতে যেতে তিনি বলেন, “আমি পরে টিকা নেব, এখন নয়।” ওদিকে, পেছন থেকে এক স্বাস্থ্যকর্মীকে ’প্লিজ এখনই নিয়ে নিন’ বলে অনুরোধ করতে শোনা যায়।

এনডিটিভি জানায়, উত্তর প্রদেশে বিধানসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে ঘনবসতিপূর্ণ এই রাজ্যটিতে টিকা কর্মসূচি দ্রুত বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। উত্তর প্রদেশের সবচেয়ে কম মানুষ টিকা নিয়েছেন এই বাল্লিয়া জেলায়।

টিকা কর্মসূচির তত্ত্বাবধানে থাকা এক কর্মকর্তা ঘটনার ব্যাখ্যায় বলেন, “টিকা দেওয়ার চেষ্টার সময় ভিডিওগুলো করা হয়েছে। গাছে উঠে যাওয়া ব্যক্তি প্রথমে টিকা নিতে দ্বিধা করছিলেন। পরে আমরা তাকে বুঝিয়ে টিকা দেই। আর পরের ঘটনায় এক মাঝি ভয় পেয়ে গিয়েছিলেন এই ভেবে যে, আমরা তাকে জোর করে ধরে নিয়ে যাব। একারণেই তিনি আক্রমণাত্মক হয়ে ওঠেন।”

গত বছর জানুয়ারিতে শুরু হওয়া ভারতব্যাপী টিকা কর্মসূচির পর এখন পর্যন্ত উত্তর প্রদেশে ২৪ কোটি ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে। টিকা কর্মসূচি স্বাস্থ্যকর্মীদের থেকে শুরু করা হয়েছিল। আর সামনের সারিতে কাজ করাদের টিকা দেওয়া শুরু হয় গত বছর ২ ফেব্রুয়ারি।

 উত্তর প্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ সম্প্রতি রাজ্যের প্রাপ্তবয়স্কদের প্রায় ৯৫ শতাংশকে টিকার অন্তত একটি ডোজ দেওয়া হয়েছে বলে জানান। ‍দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছে ৬২ শতাংশ।

১৫-১৭ বয়সীদের জন্য এক কোটি ৪০ লাখ ডোজকে সামনে রেখে ইতোমধ্যে ৬২ লাখ ৮৩ হাজার ডোজ সরবরাহ করা হয়েছে।