২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

আগের ম্যাচের উইকেটেই বাংলাদেশ-আফগানিস্তান ম্যাচ

  • সাউথ্যাম্পটন থেকে আরিফুল ইসলাম রনি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-06-23 21:18:18 BdST

bdnews24

বাংলাদেশের অনুশীলনে ঘুরেফিরে বারবার অনেকেই ভালোভাবে দেখে নিচ্ছিলেন উইকেট। আফগানদের এ দিন ছিল বিশ্রাম। অধিনায়ক গুলবাদিন নাইব অবশ্য মাঠে এলেন সংবাদ সম্মেলনের জন্য। তবে উইকেট দেখার তাগিদ তার দেখা গেল না। মাত্র আগের দিনই তো খেলেছেন এই ২২ গজে!

শনিবার যে উইকেটে হয়েছে ভারত ও আফগানিস্তানের ম্যাচ, হ্যাম্পশায়ার বৌলে সোমবার সেই উইকেটেই খেলবে বাংলাদেশ ও আফগানিস্তান।

ভারতের বিপক্ষে আফগানদের ম্যাচের উইকেট ছিল বেশ মন্থর। রান করতে ধুঁকেছেন দুই দলের ব্যাটসম্যানরাই। এই মাঠের সীমানাও বেশ বড়। দুই দলের ইনিংসেই বাউন্ডারি ছিল কেবল ১৫টি করে, একটি করে ছক্কা।

ব্যবহৃত উইকেট মন্থর হতে পারে আরেকটু। বড় মাঠে এই উইকেটে বড় রান হবে বলে মনে করছেন না স্টিভ রোডস। বাংলাদেশ কোচের মতে, এখানে চার-ছক্কার চেয়ে সিঙ্গেলস-ডাবলস হবে গুরুত্বপূর্ণ।

“কালকের ম্যাচটা আমি কিছুটা দেখেছি টিভিতে। অনুশীলনের সময়ও চোখ রেখেছিলাম ফোনে। আমরা যেসব উইকেটে খেলে এসেছি, সেসবের তুলনায় উইকেট একটু ধীরগতির মনে হয়েছে। সেই উইকেটেই আমরা খেলব।”

“এই মাঠের সীমানা বিশাল, উইকেট মাঠের ঠিক মাঝখানে। সেই আশি-নব্বই দশকের দিনগুলিতে হয়তো ফিরে যেতে হবে আমাদের। চার-ছক্কা হয়তো খুব বেশি হবে না। আমাদেরকে জোরে দৌড়াতে হবে, সিঙ্গেলকে ডাবল, ডাবলকে তিনে পরিণত করতে হবে। আমার মনে হয়, আমাদের বোলারদের জন্য এই উইকেট বেশ মানিয়ে যাবে। চ্যালেঞ্জটি নিতে আমরা মুখিয়ে আছি।”

বাংলাদেশের বোলারদের এখানে মানিয়ে নিতে হবে; আফগানরা কিন্তু মানিয়ে নিয়েছে এর মধ্যেই। চার স্পিনারের দারুণ বোলিংয়ে ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিং লাইন আপকে আটকে রাখে তারা ২২৪ রানে। পরিচিত উইকেটে তারা বিপাকে ফেলতে চাইবেন বাংলাদেশকেও।

আফগান অধিনায়ক গুলবদিন নাইব যদিও এটিকে খুব বড় সুবিধা বলতে নারাজ।

“হ্যাঁ, আমরা এই উইকেটে খেলেছি। একই উইকেটে খেলা। তবে ক্রিকেট খেলাটা নির্ভর করে নির্দিষ্ট দিনের ওপর, বিশেষ করে ইংলিশ কন্ডিশনে। আবহাওয়া নিয়েও আগাম কিছু বলা কঠিন। গতকাল দিনটি ভালো ছিল, রৌদ্রোজ্জ্বল। মেঘলা আকাশ থাকলে আবার আরেকরকম। সব মিলিয়ে আমার মনে হয়, দুই দলের জন্যই ভালো উইকেট হবে।”


ট্যাগ:  বাংলাদেশ  আফগানিস্তান  ক্রিকেট বিশ্বকাপ