১৮ আগস্ট ২০১৯, ৩ ভাদ্র ১৪২৬

বন্যা: সিরাজগঞ্জে ২৮২ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ, নদীতে বিলীন ৭

  • সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-07-22 11:46:49 BdST

bdnews24

বন্যার পানি ঢুকে সিরাজগঞ্জের পাঁচটি উপজেলার ২৮২টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ হয়েছে গেছে; নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে সাতটি।

জেলা শিক্ষা অফিস জানায়,বন্যা কবলিত এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ২১৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ৬৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় রয়েছে। আর নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে ছয়টি প্রাথমিক ও একটি মাধ্যমিক বিদ্যালয়। 

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সিদ্দিক মোহাম্মদ ইউসুফ রেজা বলেন, “জেলার পাঁচটি উপজেলার ২১৫টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্যার পানি প্রবেশ করেছে। এসব বিদ্যালয়ের পাঠদান বন্ধ রয়েছে।”

তিনি বলেন,বন্যা কবলিত প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোর মধ্যে কাজিপুরে ৮৬, চৌহালিতে ১৯, সিরাজগঞ্জ সদরে ২৫, শাহজাদপুরে ৬৫, এবং বেলকুচি উপজেলায় ২০টি রয়েছে।

আর যমুনা নদীর ভাঙ্গনে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে- চৌহালি উপজেলার অ্যাওয়াজী কাঠালিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিদাশুরিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, চৌবারিয়া পূর্বপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বিলজলহর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, বেলকুচি উপজেলার রতনকান্দি সোহাগপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং সিরাজগঞ্জ সদরে বেতুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

এছাড়া বেলকুচি উপজেলার চরবেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মেহেরনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং শাহজাদপুর উপজেলার বাঐখোলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নদী ভাঙ্গনের মুখে রয়েছে বলে এ শিক্ষা করর্মকর্তা জানান। 

তিনি বলেন, সিরাজগঞ্জ সদরে চারটি, কাজিপুরে সাতটি, বেলকুচিতে দুইটি এবং চৌহালিতে দুইটি বিদ্যালয়ে আশ্রয়কেন্দ্র্র খোলা হয়েছে।

জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো.শফিউল্লা বলেন, বন্যার পানি প্রবেশ করায় জেলার ৬৭টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়, মাদ্রাসা ও কলেজে পাঠদান বন্ধ রয়েছে।

“এর মধ্যে চৌহালিতে ২১, কাজিপুরে ১৯, শাহজাদপরে ১০, বেলকুচিতে ১০ এবং সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলায় ৭টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে।”

তিনি বলেন,চৌহালী উপজেলার চরপাচরিয়া উচ্চ বিদ্যালয় নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। এছাড়াও বন্যার পানির প্রবল স্রোতে কাজিপুর উজেলার নাটুয়ারপাড়া কেবি উচ্চ বিদ্যালয় ও নিশ্চিন্তপুর উচ্চ বিদ্যালয়ে প্রবেশের রাস্তা ধসে গেছে।


ট্যাগ:  রাজশাহী বিভাগ  সিরাজগঞ্জ জেলা