আবরার হত্যা: দোষীদের দ্রুত সাজা চান মা রোকেয়া

  • হাসান আলী, কুষ্টিয়া প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-11-13 21:38:30 BdST

bdnews24
আবরার ফাহাদের মা রোকেয়া খাতুন

আবরার ফাহাদ হত্যার দ্রুত বিচার ও রায় কার্যকর চেয়েছেন তার মা রোকেয়া খাতুন।

বুধবার এ হত্যাকাণ্ডের অভিযোগপত্র দেওয়ার খবরে প্রতিক্রিয়া জানাতে কান্নারত অবস্থায় তিনি সাংবাদিকদের একথা বলেন।

একই সঙ্গে দ্রুত সময়ে অভিযোগপত্র দেওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ দেন।  

গত ৬ অক্টোবর বুয়েটের শেরেবাংলা হলে ছাত্রলীগের কয়েকজন নেতাকর্মী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা করেছে। ফাহাদ বুয়েটের তড়িৎ ও ইলেকট্রনিক প্রকৌশল বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের (১৭তম ব্যাচ) ছাত্র ছিলেন। কুষ্টিয়া শহরের পিটিআই সড়কের বরকতউল্লাহর ছেলে তিনি।

আবরার হত্যা মামলায় বুধবার ২৫ জনকে আসামি করে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে গোয়েন্দা পুলিশ।

এদের মধ্যে ১১ জন আবরারকে হত্যায় সরাসরি অংশ নেয়। আর সেখানে উপস্থিতি এবং অন্যভাবে সম্পৃক্ততার কারণে বাকি ১৪ জনকে অভিযোগপত্রে আসামি করা হয়েছে বলে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান।

এদিকে, আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার বিচার দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

দুপুরে আবরারদের কুষ্টিয়ার বাড়ি গিয়ে কথা হয় তার মা রোকেয়া খাতুনের সঙ্গে।

তিনি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার ছেলের বিচারের দায়িত্ব নিয়েছেন, আমি তাকে কৃতজ্ঞতা জানাই, সেই সাথে ধন্যবাদ জানাই দ্রুত তদন্ত শেষ করার জন্য পুলিশকে।

“আমি চাই এখন দ্রুততম সময়ে বিচার কাজ শেষ হোক, এখানে যা রায় আসবে সেটা যেন দ্রুত সময়ের মধ্যেই সর্বোচ্চ শাস্তি ফাঁসির রায় কার্যকর করা হয়।”

তিনি দেশবাসী, প্রশাসন, গণমাধ্যম, বুয়েটের ছাত্র-ছাত্রী সবার প্রতি ধন্যবাদ জানিয়ে বিচার কাজ শুরু এবং দ্রুত সময়ের মধ্যে তার বাস্তবায়ন দেখার প্রত্যাশা করেন।  

এ সময় রোকেয়া খাতুন বুয়েট প্রশাসনের ‘দায়িত্বহীনতা ও অবহেলার’ কথা উল্লেখ করে বলেন, “তারা যদি সময়মতো প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিত তাহলে হয়ত আমার ছেলেকে এভাবে অকালে জীবন দিতে হতো না। ওরা মেরেছিল হয়ত গুরুতর অসুস্থ হতো, হয়ত ছয়মাস বা এক বছর হাসপাতালে বা বিছানায় থাকত তবুও তো আমার বুকের ধন আমার বুকে আবার ফিরে আসত।”

তিনি প্রধানমন্ত্রীকে আবারও ধন্যবাদ জানান তার কাছে করা ওয়াদা রক্ষা করেছেন বলে।

“মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমার কাছে যে ওয়াদা করেছিলেন তার প্রতিফলন দেখতে পাচ্ছি। দ্রুত সময়ে পুলিশ প্রশাসন এই তদন্ত শেষ করেছে- তাদেরও ধন্যবাদ জানাই। বেশি সংখ্যক আসমিকে গ্রেপ্তার করেছে, আর যে দুয়েকজন এখনও বাইরে আছে তাদেরও গ্রেপ্তার করবে বলে আমি আশা রাখি।”