পীরগঞ্জে হামলা: আদালতে সৈকত, রবিউলের স্বীকারোক্তি

  • রংপুর প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-10-24 22:44:15 BdST

bdnews24

রংপুরের পীরগঞ্জের মাঝিপাড়ায় হিন্দু বাড়িঘরে হামলা, লুটপাট ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় গ্রেপ্তার ‘বহিষ্কৃত’ ছাত্রলীগ নেতা সৈকত মণ্ডল ও সহযোগী রবিউল ইসলাম আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন।

রোববার সন্ধ্যায় রংপুরের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. দেলোয়ার হোসেনের আদালতে তারা ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

পরে তাদের কারাগারে পাঠানো হয় বলে আদালতের সাধারণ নিবন্ধক (জিআরও) মো. শহিদুর রহমান জানান।

শহিদুর রহমান বলেন, আসামি সৈকত মণ্ডলের বিরুদ্ধে র‍্যাবের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা (আইসিটি) আইনের মামলায় বিকালে তাকে আদালতে তোলা হয়। ঘটনায় নিজের সম্পৃক্ততার দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দিয়েছেন সৈকত।

একই ঘটনায় অন্য আরেক মামলায় সৈকত মণ্ডলের সহযোগী রবিউল ইসলামও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বলে শহিদুর জানান।

আইসিটি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই সুদীপ্ত শাহীন জানান, সৈকত মণ্ডল স্বেচ্ছায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়ে জবানবন্দি দিয়েছেন।

কারমাইকেল কলেজ ছাত্রলীগ কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

সহিংসতায় উসকানি: গ্রেপ্তার ইসলামী বক্তার ‘স্বীকারোক্তি’

“এছাড়া তার সঙ্গে গ্রেপ্তার রবিউল ইসলামকে আদালতে তোলা হয়েছিল। তার বিরুদ্ধে অগ্নিসংযোগ, ভাঙচুর ও লুটপাটের মামলা হয়েছে। তিনিও স্বেচ্ছায় ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা আদালতকে জানিয়েছেন।”

এর আগে সহিংসতার ওই ঘটনায় তিন দিনের রিমান্ডে থাকা ৩৭ আসামিকে আদালতে তোলা হয়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মাহবুবুর রহমান নতুন করে রিমান্ড আবেদন না করায় শুনানি শেষে তাদেরও কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত।

এ সময় আদালতে আসামিপক্ষের একাধিক আইনজীবী উপস্থিত ছিলেন। তারা জামিন আবেদন জানালে আদালত তা নাকচ করে দেয়।

কারমাইকেল কলেজের দর্শন বিভাগের ছাত্র ও ছাত্রলীগের ওই বিভাগের সহ-সভাপতি সৈকত মণ্ডলকে ফেইইসবুকে উসকানিমূলক পোস্ট দেওয়ার অভিযোগে গত ১৮ অক্টোবর সংগঠন থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়। গত শুক্রবার গাজীপুরের পঙ্গী থেকে সৈকত মন্ডল ও রবিউল ইসলামকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। 

রংপুরের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) কামরুজ্জামান জানান, মাঝিপাড়ায় সাম্প্রদায়িক সহিংসতার ঘটনায় তিনটি ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা হয়েছে। এছাড়া বাড়ি-ঘরে হামলা, ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ ও লুটের ঘটনায় পৃথক একটি মামলা হয়েছে। এসব মামলায় এখন পর্যন্ত ৬৪ জন গ্রেপ্তার হয়েছে।

গত রোববার (১৭ অক্টোবর) রাতে ফেইসবুকে ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে পীরগঞ্জের রামনাথপুর ইউনিয়নের বড়করিমপুর মাঝিপাড়া গ্রামে হিন্দু সম্প্রদায়ের বাড়ি-ঘরে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগ করে একদল লোক। গ্রামের ১৫টি পরিবারের ২১টি বাড়ির সবকিছু পুড়ে গেছে। এই সময় হামলাকারীরা লুটপাটও করে। এ ঘটনায় পীরগঞ্জ থানায় দায়ের করা মামলায় ৬৪ জন গ্রেপ্তার হয়েছেন।