১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

পাবনায় নতুন রেল লাইন, দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান

  • সৈকত আফরোজ আসাদ, পাবনা প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-05-30 23:20:46 BdST

bdnews24

দীর্ঘ প্রতীক্ষার পর মাঝগ্রাম থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন রেল লাইন প্রকল্পের প্রথম পর্যায়ের কাজ শেষ হয়েছে।

এই অংশে পাবনা থেকে মাঝগ্রাম পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটারে কাজ শেষ হওয়ার পর পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ে বিভাগ পাকশী বুধবার পরীক্ষামূলক ট্রেন চালিয়ে পর্যবেক্ষণ করে।

চলতি বছরের মধ্যে ২য় পর্যায়ের কাজও শেষ হবে বলে প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

পাবনার ঈশ্বরদী উপজেলার মাঝগ্রাম থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত এই লাইনের দৈর্ঘ্য ৭৮ দশমিক ৮ কিলোমিটার।

পশ্চিমাঞ্চলীয় রেলওয়ে বিভাগ পাকশীর বিভাগীয় ব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার বলেন, বহুল প্রতীক্ষিত এই প্রকল্পটির কাজ চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে শেষ করার জন্যে জোর চেষ্টা চলছে।

“প্রকল্পটির প্রথমে বরাদ্দ ৯৮২ কোটি ৮৬ লাখ ৫৬ হাজার টাকা থাকলেও তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৬শত ২৯ কোটি টাকা।”

মাঝগ্রাম-ঢালারচর ভায়া পাবনা রেলপথের কাজ ২০১০ সালের অক্টোবর মাসে শুরু হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক প্রকল্পের এক কর্মকর্তা বলেন, মাঝগ্রাম থেকে পাবনা পর্যন্ত ২৫ কিলোমিটার রেলপথ ও চারটি স্টেশন নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ শেষ হয়েছে। খুব শিঘ্রই যাত্রী চলাচলের জন্য ট্রেন চলবে। মাঝগ্রাম থেকে পাবনা পর্যন্ত ৩৬টি ছোট ও দুটি বড় সেতু এবং পাবনা থেকে ঢালারচর পর্যন্ত ৭৬টি ছোট ও ৯টি বড় সেতু নির্মাণের কাজ শেষ হলেও লাইন বসানের কাজ চলছে।

পর্যবেক্ষণ ট্রেনের পরীক্ষামূলক যাত্রা শেষে পাবনা সদর আসনের সংসদ সদস্য গোলাম ফারুক প্রিন্স সাংবাদিকদের বলেন, প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলে আগামী রোজার ঈদের পরপরই পাবনার মানুষ পাবনা রাজশাহী রেলপথে চলাচল করতে পারবেন।

এর আগে সকালে পাবনার পাকশী পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে বিভাগের একটি পরীক্ষামূলক ট্রেন রেলপথ মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধিদল নিয়ে পশ্চিমাঞ্চলীয় রেল বিভাগ পাকশী থেকে পাবনার উদ্দেশে ছেড়ে আসে। কোন ধরণের প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই বেলা ১২টার দিকে পাবনা স্টেশনে পৌঁছায়। পরীক্ষামূলক এ ট্রেনের যাত্রা পর্যবেক্ষণ শেষে পর্যবেক্ষক দল সন্তোষ প্রকাশ করেছে।

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সরকারী পরিদর্শক খোন্দকার শহিদুল ইসলাম, পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে বিভাগের বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক (ডিআরএম) অসীম কুমার তালুকদারসহ রেল বিভাগের কর্মকর্তারা এই সময় উপস্থিত ছিলেন।

গোলাম ফারুক প্রিন্স জানান, স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে পাবনায় রেলপথ নির্মাণের কাজ শুরু হয়। বঙ্গবন্ধু হত্যার পর বন্ধ হয়ে যায় পাবানাবাসীর স্বপ্নের এই প্রকল্প। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর পাবনায় রেলপথ নির্মাণের কাজ শুরু করে।

“বর্তমানে প্রকল্পের পাবনা পর্যন্ত অংশের কাজ শেষ হয়েছে। ঢালারচরে সম্প্রসারণের কাজ ও দ্রুত গতিতে চলমান। ঈদের পর এক মাসের মধ্যেই পাবনা থেকে রাজশাহী ট্রেন চলাচল শুরু হবে।”

রেলপথ মন্ত্রণালয়ের সহকারী পরিদর্শক খোন্দকার শহিদুল ইসলাম বলেন, “মাঝগ্রাম থেকে পাবনা পর্যন্ত অবকাঠামো নিয়ে আমরা সন্তুষ্ট। কিছু কিছু যায়গায় লেভেল ক্রসিং গেটের কাজ চলমান। লোকবল নিয়োগ শেষে দ্রুত এই রুটে রেল চালু করা হবে।”

পাবনা জেলার ১১টি থানার মধ্যে ৩টি থানার অল্প সংখ্যক মানুষ রেলপথ সুবিধা পেলেও জেলার মোট জনসংখ্যার বিরাট একটি অংশ এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিল। এ রেলপথ নির্মাণের দাবি ছিল পাবনাবাসীর দীর্ঘ দিনের। সেই অপেক্ষার পালা শেষ হতে চলছে।


ট্যাগ:  রাজশাহী বিভাগ  পাবনা জেলা