মৃত ব্যক্তির ৩৭ লাখ টাকা আত্মসাৎ, পূবালীর দুই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

ছবি: সিএমএম আদালত
মৃত এক ব্যক্তির স্বাক্ষর জাল করে ৩৭ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে দুই ব্যাংক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ঢাকার আদালতে মামলা হয়েছে।

এরা হলেন- পূবালী ব্যাংকের চকবাজার শাখার প্রিন্সিপাল অফিসার শরীফ প্রধান ও একই শাখার অ্যাসিটেন্ট জেনারেল ম্যানেজার রফিকুল ইসলাম।

মৃত মোস্তাফিজুর রহমানের শ্যালক সালেহ আহমেদ রোববার ঢাকার মহানগর হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরার আদালতে মামলাটি করেন।

বিচারক বাদীর জবানবন্দি নিয়ে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগকে (সিআইডি) অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দিয়েছেন বলে বাদীর আইনজীবী সাইফুল ইসলাম (রিপন) জানান।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, এ মামলার আসামি শরীফ প্রধানের সঙ্গে বাদীর বোন নাজমা আক্তারের বিবাহ হয়। নাজমা ২০১৮ সালে নিঃসন্তান অবস্থায় মারা যান। গত বছর ২৯ ফেব্রুয়ারি বাদীর আরেক বোন রাবেয়া আক্তারের সাথে মোস্তাফিজুর রহমানের বিবাহ হয়।

মোস্তাফিজুর রহমান নাজিরা বাজারে পপুলার সাইকেল মাঠ নামে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের স্বত্ত্বাধিকারী হয়ে সাইকেল পার্টসের ব্যবসা করতেন। এ মামলার সাক্ষী বিল্লাল হোসেনের কাছে ব্যবসায়িকভাবে ৩৭ লাখ টাকা তার পাওনা হয়। ওই টাকার চেক পেয়ে মোস্তাফিজুর ২১ মার্চ পূবালী ব্যাংকের চকবাজার শাখায় গিয়ে আসামি শরীফ প্রধানের সাথে দেখা করে চেকটি দেন। সেখানে অসুস্থ হয়ে পড়লে তিনি চেকটি শরীফ প্রধানের কাছে রেখে চলে আসেন।

পরে তার করোনাভাইরাস ধরা পড়ে। অসুস্থ অবস্থায় মোস্তাফিজুর রহমান চেকের বিষয়টি তার স্ত্রী রাবেয়া আক্তারকে জানান। ২৫ মার্চ মোস্তাফিজুর রহমান মারা যান। পরে এ বিষয়ে এ মামলার বাদী বংশাল থানায় একটি জিডি করেন।

রফিকুল ইসলামের সহযোগিতা নিয়ে শরীফ প্রধান মোস্তাফিজুর রহমানের স্বাক্ষর জাল করে ৩৭ লাখ টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেছেন বলে তদন্তে ওঠে আসে। টাকার বিষয়ে জানতে চাইলে শরীফ প্রধান রাবেয়া আক্তারকে ‘ভয়ভীতি’ দেখান।