র‌্যাব এখন আস্থার প্রতীক: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

র‌্যাবের শীর্ষ কর্মকর্তাদের উপর যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞার জন্য বিএনপিকে দায়ী করে পুলিশ সপ্তাহের অনুষ্ঠানে এই বাহিনীকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল।

তিনি বলেছেন, “র‌্যাব বিএনপির সৃষ্টি, সে সময় কী করেছিল তা ঘাঁটতে চাই না। আমাদের আমলে র‌্যাব আস্থার প্রতীক। যেখানে অসম্ভব সেখানে র‌্যাব আলো ছড়িয়ে দিচ্ছে। র‌্যাব শুধু নিরাপত্তার জন্য নয়, যে কোনো চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছে।

“বিএনপি-জামায়াত জোট কোনো সুযোগ না পেয়ে, জনগণের আশ্রয়-প্রশ্রয় না পেয়ে লবিস্টের মাধ্যমে বর্তমান এই অবস্থার সৃষ্টি করেছে।”

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বলেন, “আওয়ামী লীগের উন্নয়নের কর্মকাণ্ডের কারণে যখন জনগণ এসব বিষয়ে আশ্রয়-প্রশ্রয় দিচ্ছিল না তখন এই লবিস্টের মাধ্যমে, বিদেশিদের মাধ্যমে তারা একটা অবস্থা সৃষ্টি করে ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে।”

পুলিশ সপ্তাহের শেষ দিনে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে সচিবদের সঙ্গে বৈঠকের কর্মসূচি ছিল শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তাদের। রাজারবাগে দিনব্যাপী এই বৈঠক রাতে পুলিশের মহাপরিদর্শক বেনজীর আহমেদের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে শেষ হয়। বৈঠকগুলোতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও উপস্থিত ছিলেন।

এসব বৈঠকে পুলিশ সদস্যদের পক্ষ থেকে যেসব দাবি উত্থাপিত হয়, তা বিবেচনার আশ্বাস দেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

“পুলিশের কর্মক্ষমতা বৃদ্ধি আর গতিশীল করতে যা যা করা প্রয়োজন, সব কিছুই করা হবে। বিশ্বমানের পুলিশ এবং অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তার জন্য যা করা দরকার, তার সবটাই করা হবে।”

‘দক্ষ পুলিশ, সমৃদ্ধ দেশ, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশ’ প্রতিপাদ্য নিয়ে রোববার শুরু হয় পুলিশ সপ্তাহ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়াল মাধ্যমে যুক্ত থেকে তা উদ্বোধন করেন।

সারাদেশ থেকে শীর্ষ পুলিশ কর্মকর্তারা ঢাকায় এসে পুলিশ সপ্তাহের সপ্তাহব্যাপী অনুষ্ঠানে অংশ নেন।

সকালের অধিবেশনে পুলিশ কর্মকর্তাদের বিভিন্ন দাবির বিষয়ে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন তার বক্তব্যে বলেন, বরিশাল এবং মৌলভীবাজারে দু্টি পুলিশ ট্রেনিং সেন্টারে জনবল অনুমোদনসহ পুলিশে জনবল কাঠামোতে বিভিন্ন পদ সৃজন সরকারের বিবেচনায় রযেছে।

আর্মর্ড পুলিশের তিনটি নতুন ব্যাটালিয়ন করা, থানা বৃদ্ধি করা, শীর্ষ কর্মকর্তাদের আবাসন সমস্যা নিরসনের বিষয়েও আশ্বাস দেন তিনি।