ব্যাটে-বলে আলো ছড়িয়ে নায়ক সাকিব

৪২ রানের ইনিংস খেলার পথে সাকিব আল হাসানের একটি শট। ছবি: আইসিসি।
স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে দলের হারের দায় ছিল তার কাঁধেও। সেই ব্যর্থতা পেছনে ফেলে ওমানের বিপক্ষে বাঁচা-মরার ম্যাচে জ্বলে উঠলেন সাকিব আল হাসান। ব্যাট ও বল হাতে নিজেকে মেলে ধরে বাংলাদেশের জয়ের নায়ক এই অলরাউন্ডার।

ওমানের আল আমেরাত স্টেডিয়ামে মঙ্গলবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের ‘বি’ গ্রুপের ম্যাচে স্বাগতিকদের ২৬ রানে হারায় বাংলাদেশ। এই জয়ে সুপার টুয়েলভে যাওয়ার আশা বেঁচে রইল মাহমুদউল্লাহর দলের।

২৯ বলে ৪২ রানের ইনিংস খেলা সাকিব পরে বল হাতে ২৮ রান দিয়ে নেন তিন উইকেট। অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে জেতেন ম্যাচ সেরার পুরস্কার।

দেশের হয়ে টি-টোয়েন্টিতে অষ্টমবার এই স্বীকৃতি পেলেন সাকিব। আর টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে দ্বিতীয়। ২০১৪ আসরে আফগানিস্তানের বিপক্ষে ব্যাট হাতে অপরাজিত ১০ রান ও বল হাতে ৩ উইকেট নিয়ে হয়েছিলেন ম্যাচ সেরা।

ওমানের বিপক্ষে এদিনও শুরুতে ধাক্কা খায় টস জিতে ব্যাটিংয়ে নামা বাংলাদেশ। ২১ রান তুলতেই তারা হারায় ২ উইকেট। সেখান থেকে মোহাম্মদ নাঈম শেখকে নিয়ে দলকে টানেন সাকিব।

এই দুইজনের জুটিতে শতরান পার করে বাংলাদেশ। তাদের ৫৩ বলে ৮০ রানের প্রতিরোধ ভাঙে সাকিবের বিদায়ে। নাঈম ফিফটির দেখা পেলেও সাকিব রান আউটে কাটা পড়েন ৪২ রানে। তার ইনিংসটি সাজানো ৬ চারে।

পাওয়ার প্লেতে দুই ওভার বোলিং করে ১৭ রান দেন সাকিব। হজম করেন দুটি চার ও একটি ছক্কা।

ত্রয়োদশ ওভারে আক্রমণে এসে পান উইকেটের দেখা। ফিরিয়ে দেন ওমানের বড় ভরসা জাতিন্দার সিংকে। ৩৩ বলে ৪০ করা এই বিস্ফোরক ব্যাটসম্যান ধরা পড়েন স্কয়ার লেগ সীমানায়।

১৭তম ওভারে পরপর দুই বলে আয়ান খান ও নাসিম খুশিকে ফেরান সাকিব। দুইজনই লং অফে মাহমুদউল্লাহর হাতে ধরা পড়েন।