শুল্ক আত্মসাতের মামলায় চট্টগ্রামের দুই রাজস্ব কর্মকর্তা কারাগারে

চট্টগ্রামে পরীর পাহাড়ে অবস্থিত আদালত ভবন
২৪ লাখ ৩৩ হাজার ৫০২ টাকার শুল্ক আত্মসাতের মামলায় আত্মসমর্পণের পর চট্টগ্রামের দুই রাজস্ব কর্মকর্তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছে আদালত।

এরা হলেন- রাজস্ব কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন মাহমুদ খান ও সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা মো. রবিউল ইসলাম মোল্লা।

দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামের মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুর রহমান এ আদেশ দেন বলে দুদকের আইনজীবী কাজী সানোয়ার আহমেদ লাভলু জানান।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, এই দুই আসামি উচ্চ আদালতে জামিনের আবেদন করেছিলেন। আদালত তাদের সংশ্লিষ্ট আদালতে আত্মসমর্পণের নির্দেশ দেন।

“আজ আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে, আদালত তা নামঞ্জুর করে তাদের কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।”

এই মামলার অপর দুই আসামি নেপচুন ট্রেডিং এজেন্সির মালিক ইকবাল হোসেন মজুমদার ও বনলতা শিপিং এজেন্সির মালিক মো. আবদুল মান্নান চৌধুরী পলাতক বলে সানোয়ার জানান।

২৪ লাখ ৩৩ হাজার ৫০২ টাকার আত্মসাতের অভিযোগে গত ২৪ নভেম্বর মামলাটি করেন দুদক চট্টগ্রাম-১ এর উপ-পরিচালক আবু সাঈদ।

বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, ২০১৬ সালের নভেম্বরে ঢাকার রয়েল ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল নামের একটি প্রতিষ্ঠান বিভিন্ন ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি আমদানি করে। শুল্কায়ন ও পণ্য ছাড়ের জন্য নেপচুন ট্রেডিং এজেন্সি ও বনলতা শিপিং এজেন্সিকে দায়িত্ব দেয়া হয়। কিন্তু নিয়ম অনুসারে কায়িক পরীক্ষা ও যথাযথ শুল্কায়ন না করে পণ্যগুলো খালাস করা হয়।

পরবর্তীতে দুদক তদন্ত করে ওই ঘটনায় ২৪ লাখ ৩৩ হাজার ৫০২ টাকা রাজস্ব ফাঁকি ও আত্মসাতের প্রমাণ পেয়ে মামলা করে।

দুই রাজস্ব কর্মকর্তার মধ্যে নাসির উদ্দিন মাহমুদ খান বর্তমানে অবসরে আছেন।