কোভিড বিধিনিষেধ উঠলে ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে চট্টগ্রামে বইমেলা

ভাইরাস বিস্তারের ঊর্ধ্বগতির মধ্যেই চট্টগ্রামে একুশে বইমেলা আয়োজনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন; তবে কোভিড সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে চলমান সরকারি বিধি নিষেধ শিথিল হলেই শুধু মেলা শুরু হবে।

আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে নগরীর এমএ আজিজ স্টেডিয়াম জিমনেশিয়ামে ১৫ দিনের মেলা আয়োজনের সিদ্ধান্ত এসেছে অমর একুশে বইমেলা ২০২২ উপলক্ষে প্রকাশকদের সঙ্গে মত বিনিময় সভা থেকে।

বৃহস্পতিবার নগর ভবনে এ সভা শেষে মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী করোনাভাইরাসের কারণে এক বছর বন্ধ থাকার পর আবার বইমেলা আয়োজনের কথা জানান।

মেলা আয়োজন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “করোনাভাইরাস অতিমারীর কারণে মানুষ বাসায় বন্দি থাকতে থাকতে হাঁপিয়ে উঠেছে। তারা সুযোগ পেলেই বাইরে আসছে।

“সুতরাং বইমেলা শুরু হলে জনসাধারণের প্রাণের স্পন্দন ও পদচারণায় মুখর হয়ে উঠবে। তাই স্বাস্থ্যবিধি মেনেই মেলায় অংশ নিতে হবে।”

পরে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) জনসংযোগ কর্মকর্তা কালাম চৌধুরী সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ বিষয়ে জানানো হয়।

মহামারী: স্থগিত হয়ে গেল চট্টগ্রামের একুশে বইমেলা  

চট্টগ্রামে একুশের বইমেলা এবার ২৩ মার্চ শুরু  

চট্টগ্রামের একুশে বইমেলা আরও বড় পরিসরে  

ছুটির দিনে লেখক-পাঠকে মুখর চট্টগ্রামের একুশে বইমেলা  

সভায় সিটি মেয়র রেজাউল বলেন, “সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করে আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম বইমেলা শুরুর সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। তবে পরিস্থিতি বিবেচনায় সরকারের স্বাস্থ্যবিধি সংক্রান্ত সিদ্ধান্তের আলোকে বইমেলা আয়োজনের সার্বিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

গত বছর সময় নির্ধারণ করেও করোনাভাইরাস পরিস্থিতির কারণে বইমেলা আয়োজন হয়নি চট্টগ্রামে।

২০১৯ সাল থেকে ভাষার মাস ফেব্রুয়ারিতে চট্টগ্রামে সম্মিলিত বইমেলা আয়োজন করে আসছে সিটি করপাোরেশন।

সিসিসি’র প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল আলম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “চলমান সরকারি বিধিনিষেধ শিথিল করা হলে বইমেলা আয়োজন করা হবে। তা না হলে পরবর্তীতে আবার সময় নির্ধারণ করা হবে।”

সভায় বক্তব্য রাখেন প্যানেল মেয়র মো. গিয়াস উদ্দিনসৃজনশীল প্রকশনা পরিষদের সভাপতি মহিউদ্দিন শাহআলম নিপু ও সাধারণ সম্পাদক আলী প্রয়াস প্রমুখ।