গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশন: অব্যাহতি পাওয়া কামাল বায়েজীদের পাল্টা অভিযোগ

বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ও অর্থ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া কামাল বায়েজীদ ও রফিকুল্লাহ সেলিম সংগঠনের ওই সিদ্ধান্তকে ‘অগণতান্ত্রিকভাবে’ আখ্যায়িত করেছেন।

বুধবার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে তারা দাবি করেন, অর্থ আত্মসাৎ ও দুর্নীতির ‘মিথ্যা অভিযোগ’ তুলে সভাপতি লিয়াকত আলী লাকীসহ সংগঠনের একটি অংশের সদস্যরা তাদেরকে সংগঠন থেকে অব্যাহতি দিয়েছে।

গত ২২ জানুয়ারি ফেডারেশনের সম্পাদক (প্রচার) মাসুদ আলম বাবুর স্বাক্ষরে এক সংবাদ বিবজ্ঞপ্তিতে কামাল বায়েজীদ ও রফিবুল্লাহ সেলিমকে অব্যাহতি দেওয়ার বিষয়টি জানানো হয়।

সেখানে বলা হয়, “আর্থিক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাৎ ও সাংগঠনিক স্বেচ্ছাচারিতার দায়ে সেক্রটারি জেনারেল ও অর্থ সম্পাদককে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি প্রদান করা হয়েছে।”

সংবাদ সম্মেলনে কামাল বায়েজীদ বলেন, এভাবে সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে কাউকে অব্যাহতি দেওয়া যায় না, তা ‘অগণতান্ত্রিক’।

“কাউন্সিলারদের দ্বারা চেয়ারম্যান, সেক্রেটারি জেনারেল ও সকল পর্যায়ের নেতৃত্ব নির্বাচিত, অথচ কাউন্সিল না ডেকে সম্মানিত কাউন্সিলারদের বৃদ্ধাঙ্গুলি প্রদর্শন করে চেয়ারম্যান ও কেন্দ্রীয় পরিষদের একাংশ যে ঔদ্ধত্য প্রকাশ করেছে তা ক্ষমাহীন।”

অব্যাহতি দিয়ে কামাল বায়েজীদের বিরুদ্ধে অভিযোগে বলা হয়, তিনি সংগঠনের ব্যাংক হিসাব থেকে নিজের ব্যক্তিগত ব্যাংক হিসেবে টাকা স্থানান্তর করেছেন। তার একক সিদ্ধান্তে ফেডারেশনকে পরিচালিত করার ‘অপচেষ্টা’ করেছেন। তার ‘স্বৈরাচারি ও একনায়কতান্ত্রিক’ মনোভাবের কারণে সংগঠনের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হয়েছে।

দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ: ‘শত কোটি টাকা’ দুর্নীতির অভিযোগকে ‘অপপ্রচার’ বললেন শিল্পকলার ডিজি  

সেসব অভিযোগ অস্বীকার করে কামাল বায়েজীদ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আমার ৬২ বছর বয়সের মধ্যে ৪৫ বছরের শিল্পী জীবনে কোনো অন্যায়ের কাছে মাথা নত করিনি। কোনো আর্থিক অনাচারের সাথে নিজেকে যুক্ত করিনি। তহবিল তসরুফ ও অর্থ লোপাটের মত ঘৃণ্য কাজ সব সময় ঘৃণা করেছি। সেই আমাকে যখন সংগঠনের অর্থ লোপাটের মত ঘৃণ্য অপরাধে অপরাধী করে সংবাদ মাধ্যমে প্রকাশ করা হল, তখন এর প্রতিবাদ করতে আমি বাধ্য হয়েছি।”

তিনি বলেন, “আমি ও আমার নেতৃত্বাধীন অর্থ সম্পাদক একটি টাকাও হেরফের করিনি। আমাদের বিরুদ্ধে যা অভিযোগ করা হয়েছে, আমরা তা প্রত্যাখান করছি।”

অনিয়মের অভিযোগের বিষয়ে ‘চ্যালেঞ্জ’ ছুঁড়ে কামাল বায়েজীদ বলেন, “যারা এই কাজ করেছেন, তারা প্রমাণ করুন যে, আমি ফেডারেশনের কোনো পরিমাণ অর্থ আত্মসাৎ করেছি।”

সত্যতা প্রমাণ করতে না পারলে সভাপতি লিয়াকত আলী লাকীসহ অভিযোগকারী সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ারও হুমকি দেন তিনি।

এক প্রশ্নের জবাবে কামাল বায়েজীদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “ফেডারেশনের সভাপতি লিয়াকত আলী লাকীর বিরুদ্ধে দুর্নীতি ও অনিয়ম নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরে দুদকে একটি অনুসন্ধান চলছে। পত্র-পত্রিকায় এ নিয়ে লেখালেখি হচ্ছে। আমি তাকে একদিন এ বিষয়ে মৌখিকভাবে বলেছিলাম, তিনি যেন কিছুদিন সংগঠনের কাজ থেকে বিরতি নেন। এই কারণে হয়ত তিনি আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে অব্যাহতি দিয়েছেন।”

বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের অর্থ সম্পাদকের পদ থেকে অব্যাহতি পাওয়া রফিকুল্লাহ সেলিম সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আমি হিসাব দেওয়ার জন্য প্রস্তুত, বার বার আমি চেষ্টা করেছি হিসাব উপস্থাপন করতে, কিন্তু আমার কাছ থেকে কোনো হিসাব তারা নিতে চাননি।”

এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সভাপতি ও বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর মোবাইলে একধিকার ফোন করলেও ধরেননি তিনি।