শীতের শুষ্কতা যেন ত্বকে না পড়ে

ছবির মডেল: সারাহ ফারহা।
যাদের ত্বক স্বাভাবিকভাবেই শুষ্ক শীতকাল তাদের জন্য বাড়তি বিড়ম্বনা সৃষ্টি করে।

টাইমস অব ইন্ডিয়া ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে ‘স্কিন ল্যাব’য়ের চিকিৎসক ডা. যমুনা পাই শুষ্ক ত্বক আর্দ্র রাখার সম্পর্কে বলেন, “ত্বকের যত্নে রাসায়নিক ময়েশ্চারাইজারের বদলে প্রাকৃতিক ময়েশ্চারাইজার যেমন- বাটার, জলপাইয়ের তেল, নারিকেল তেল এবং মধু ব্যবহার করা ভালো।” 

এছাড়াও তিনি বেশ কয়েকটি কৌশল সম্পর্কে জানান।

* শুষ্কতা বাড়ায় এমন প্রসাধনী, ম্যাট লিপস্টিক, পাউডার ব্লাশ ইত্যাদি ব্যবহার না করা।

* মেইকআপের ক্ষেত্রে রঙিন লিপবাম এবং আর্দ্রতা রক্ষাকারী ফাউন্ডেশন ব্যবহার করা ভালো। এছাড়াও ক্রিম ব্লাশ এবং আর্দ্রতা রক্ষাকারী মিস্ট ব্যবহার ত্বককে কোমল ও মসৃণ করতে সাহায্য করে।

* ঘরে তৈরি টোনার ও স্ক্রাব ব্যবহার করা উপকারী। শুষ্ক ত্বকে কয়েক ফোঁটা লেবু, গুঁড়া দুধ এবং গ্লিসারিন ব্যবহার করা সুফল দেয়। এই মাস্ক সপ্তাহে দুএকবার ব্যবহারে ত্বকে উজ্জ্বল ও মসৃণভাব ফুটে ওঠে।

* অ্যালো ভেরার জেল শুষ্ক ত্বককে গভীর থেকে আর্দ্র রাখে এবং বাইরের অবস্থা থেকে সুরক্ষিত রাখে।

* এসব প্রসাধনীর পাশাপাশি মুখে খাওয়ার ‘সাপ্লিমেন্ট’ ত্বকের শুষ্কতা কমায়। কোলাজেন, সোডিয়াম হাইয়ালুরনেট, অ্যান্টি অক্সিডেন্ট উপাদান যেমন: কো-এনজাইম কিউ ১০, বেটা ক্যারোটিন অ্যাস্টাক্সানথিন, গ্লুটাথিয়ন, জিংক এবং সেলেনিয়াম ইত্যাদি ব্যবহার করা উপকারী।

মুখের সাপলিমেন্ট হিসেবে অত্যাবশ্যকীয় ফ্যটি অ্যাসিড যেমন- তিসির বীজের ক্যাপসুল, প্রিমরোজ অয়েল ক্যাপসুল, কড লিভার তেলের ক্যাপসুল এবং ওমেগা ৩, ৬, ৯ ইত্যাদি খাওয়া ত্বকের আর্দ্রতা রক্ষা করতে সহায়তা করে।

আরও পড়ুন

ধাপে ধাপে ত্বকের যত্ন  

শুষ্ক ত্বকের প্রাকৃতিক সমাধান  

শীতে পা ফাটা এড়াতে