ফটোশপে পিস্তল বসিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবাসীকে ফাঁসানোর চেষ্টা

ছবিতে ফটোশপের কারসাজিতে পিস্তল বসিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে এক প্রবাসীকে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছেন আরেক প্রবাসী।

নিজের ব্যবসায়ীক অংশিদার পার্থ গুপ্তের (৪৪) বিরুদ্ধে নিউ ইয়র্কের হোমকেয়ার ও ইন্স্যুরেন্স ব্যবসায়ী শাহনেওয়াজের করা এ হয়রানির মামলা খারিজ করেছে কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি।

শুক্রবার নিউ ইয়র্কের 'ডেইলি নিউজ' পত্রিকায় অনলাইন এডিশনে এ সংবাদ প্রকাশিত হয়।

এতে বলা হয়, পার্থ গুপ্ত হত্যার হুমকি দিয়ে টেক্সট মেসেজ করেছেন ও জ্যাকসন হাইটসে একটি অনুষ্ঠানের পর পিস্তল দেখিয়ে গুলি করার হুমকি দিয়েছেন বলে পুলিশে অভিযোগ করেন শাহনেওয়াজ। এর সমর্থনে পার্থ গুপ্তর ছবির পাশে বিছানায় পিস্তলের ছবি পুলিশকে দেখান তিনি।

অভিযোগ আমলে নিয়ে কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি অফিস তদন্ত শুরু করে এবং গত ৪ অক্টোবর পার্থকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

বুধবার ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নির আহ্বানে শাহনেওয়াজের সব অভিযোগ খারিজ করে দেন কুইন্স ক্রিমিনাল কোর্টের বিচারক।

পার্থ গুপ্ত ও শাহনেওয়াজ

পেশায় যন্ত্রশিল্পী পার্থ গুপ্ত জানান, শাহনেওয়াজের হোমকেয়ার ব্যবসার পার্টনার ছিলেন তিনি। কোভিড-১৯ মহামারীর পরিপ্রেক্ষিতে ফেডারেল সরকার হোমকেয়ার ব্যবসাতে পে-চেক প্রটেকশন প্রোগ্রাম (পিপিপি)-এ অর্থ দিয়েছে নামমাত্র সুদে এবং এ অর্থ ফেরতের শর্ত যথাযথভাবে পূরণ করলে কখনোই তা ফেরত দিতে হবে না। শাহনেওয়াজ এ খাতে মোটা ঋণ নিয়েছেন- যার লভ্যাংশ পার্থ গুপ্তরও পাবার কথা।

পার্থ অভিযোগ করেন, “সেই লভ্যাংশ চাইতে গেলেই বিরোধ বাঁধে শাহনেওয়াজের সঙ্গে। বিরোধের পরিপ্রেক্ষিতে এমন ঘটনা সাজানো হয় আমাকে হয়রানি করতে, যাতে আমি আমার ন্যায্য হিস্যা আদায় থেকে বিরত থাকি।”

এ ব্যাপারে শাহনেওয়াজের বক্তব্য জানার চেষ্টা করা হয়, কিন্তু শুক্রবার রাত পর্যন্ত তাকে ফোনে পাওয়া যায়নি।

পার্থ গুপ্তর অ্যাটর্নি ক্যারি লন্ডন শুক্রবার সাংবাদিকদের বলেন, “পিস্তলের পাশে বসে থাকা পার্থ গুপ্তকে হাসতে দেখা যায়। এটি গভীরভাবে পর্যবেক্ষণ করলে সহজেই অনুমিত হয় যে ফটোশপের কেরামতিতে ফেইসবুকের হাস্যোজ্জল পার্থ গুপ্তের ছবির পাশে পিস্তল বসিয়ে রাখা হয়েছে। ফেইসবুকের ছবি ও শাহনেওয়াজের সরবরাহ করা পিস্তলসহ সেই ছবিটিও প্রদর্শন করা হয় গণমাধ্যমে। এ কারণে কুইন্স ডিস্ট্রিক্ট অ্যাটর্নি শাহনেওয়াজের মামলাটি খারিজের আবেদন করেন।”

মামলাটি খারিজ হওয়ায় পার্থ গুপ্ত তার পাওনা পেতে শাহনেওয়াজের বিরুদ্ধে মানহানীর জন্য ক্ষতিপূরণ মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন বলে জানা গেছে।

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!