শুরু হচ্ছে তথ্যকেন্দ্রিক আয়োজন ‘বাংলাদেশ ওপেন ডেটা সামিট’

অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে বাংলাদেশ ওপেন ডেটা সামিট। দেশের সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন খাতের উন্মুক্ত ডেটার সহজলভ্যতা ও নাগরিক কল্যাণে এর সম্ভ্যাব্য ব্যবহার গুরুত্ব পাবে এই সম্মেলনে।

ইউনেস্কোর গ্লোবাল মিডিয়া অ্যান্ড ইনফর্মেশন লিটারেসি উইক উদযাপনের অংশ হিসেবে তিন দিনব্যাপী বাংলাদেশ ওপেন ডেটা সামিট শুরু হবে ২৩ অক্টোবর, শনিবার, বাংলাদেশ সময় সকাল ১০টায়। সামিটের সব সেশন অনলাাইন প্ল্যাটফর্ম জুমে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন আয়োজকরা। এতে অংশ নিচ্ছে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

বাংলাদেশে ডেটা সামিটের আয়োজন করেছে বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ডেটাফুল। এই সম্মেলনের মাধ্যমে ওপেন ডেটা উৎপাদক প্রতিষ্ঠান, ব্যবহারকারী ও নতুন উদ্ভাবকদের এক প্লাটফর্মে আনা সম্ভব হবে বলে আশা প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

আয়োজক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ডেটাভিত্তিক তিন বিষয় নিয়ে সাজানো হয়েছে সামিট। প্রথম দিনের বিষয় হবে দেশের উন্মুক্ত ডেটার প্রাপ‍্যতা বা অ্যাভেইলিবিলিটি। এদিন অতিথিরা আলোকপাত করবেন দেশের সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠান ডেটা উম্মুক্ত করার ক্ষেত্রে কতটা এগিয়েছে সে বিষয়ে।

দ্বিতীয় দিনের আলোচনার বিষয়বস্তু হবে ডেটার অভিগম্যতা বা অ্যাক্সেসিবিলিটি। উন্মুক্ত ডেটা ব্যবহারের ক্ষেত্রে মানুষের প্রতিবন্ধকতাগুলো কী সে বিষয়ে বক্তব্য রাখবেন অতিথিরা। শেষ দিনে অতিথিরা বলবেন উন্মুক্ত ডেটা ভিত্তিক নতুন উদ্ভাবন নিয়ে; কিভাবে উন্মুক্ত ডেটাকে মানুষের কল্যাণে কাজে লাগানো যায় সে বিষয়ে।

সামিটে অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আছে, এটুআই, বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরো, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অফ ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট, ইউনিভার্সিটি অফ লিবারেল আর্টস বাংলাদেশ, বাংলাদেশ ইন্সটিটিউট অফ আইসিটি ইন ডেভেলপমেন্ট, বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অফ গভর্নেন্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট ও সাউথ এশিয়া সেন্টার ফর মিডিয়া ডেভেলপমেন্ট।

অংশগ্রহণকারী বিদেশি প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আছে ভারতের ডেটালিডস, নেপালের ফ্রিডম ফোরাম, আমেরিকাভিত্তিক ওপেন ডেভেলপমেন্ট ইনিশিয়েটিভ এবং জার্মানির ডিডব্লিউ একাডেমি।

আরও পড়ুন