দেড় বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ মূল্যে অ্যাপল শেয়ার

ছবি: অ্যাপল
অ্যাপল শেয়ারের দাম বাড়বে এটা সম্ভবত সবাই অনুমান করেছিলেন। তবে, এক দিনেই শেয়ার প্রতি শতকরা সাত ভাগ উত্থান বড় ঘটনা। গত দেড় বছরে মার্কিন এই প্রযুক্তি জায়ান্ট প্রতিষ্ঠানটির শেয়ার মূল্যে এমন উল্লম্ফন ঘটেনি।

আগের দিনই অ্যাপল জানায়, চিপ সঙ্কটে বেশিরভাগ ইলেকট্রনিক গ্যাজেট বা যন্ত্রাংশ নির্মাতা প্রতিষ্ঠান যখন খাবি খাচ্ছে তখন গেল প্রান্তিকে নিজেদের ইতিহাসে সবচেয়ে বড় আয় হয়েছে অ্যাপলের।

সাপ্লাই চেইনের ভয়াবহ সঙ্কটের মধ্যেও গুরুত্বপূর্ণ এই প্রান্তিকে ১২ হাজার চারশ’ কোটি ডলার আয় আর তিনশ’ ৪০ কোটি ডলার মুনাফা বের করে নিয়ে আসতে পারা আসলে জটিল পরিস্থিতিতে প্রতিষ্ঠানটির সক্ষমতার প্রমাণ বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছে রয়টার্স।

সাপ্লাই চেইন প্রশ্নে ম্যাজিক দেখাতে পারার জন্য অ্যাপল বরাবরই পরিচিত– বলেন থার্ড ব্রিজ বিশ্লেষক স্কট কেসলার।

“সম্ভবত গোটা বছরজুড়েই অ্যাপল ভালো অবস্থানে থাকবে।”

অ্যাপলের নজর যে মেটাভার্সের দিকেও আছে সেটি প্রধান নির্বাহী টিম কুকের কথা থেকেও পরিষ্কার হয়েছে। বিনিয়োগকারীদের দেওয়া বার্তায় তিনি অ্যাপলের অগমেন্টেড রিয়ালিটি লাইব্রেরির সম্প্রসারণের কথাও বলেন, যেটি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে সাড়া ফেলেছে। প্রতিষ্ঠানটির লাইব্রেরিতে এখন প্রায় এক হাজার চারশ’ অগমেন্টেড রিয়ালিটি অ্যাপ রয়েছে।

অন্তত ১১টি ব্রোকারেজ হাউজ অ্যাপল শেয়ারের মূল্যের জন্য ১৮৮.৫ ডলারে লক্ষ্য স্থির করে রেখেছে। শুক্রবার দিন শেষে অ্যাপলের শেয়ার মূল্য ১৭০ ডলার ৩৩ সেন্টে গিয়ে ঠেকে।

এদিকে, মার্কিন ফেডারেল রিজার্ভ সুদের হার বাড়ানোয় বিনিয়োগের মুখ সেদিকে ঘুরেছে। এর ফলে, প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানগুলোর শেয়ার বিক্রির হার বেড়েছে। এতে কেবল অ্যাপল নয়, ধাক্কা লেগেছে মাইক্রোসফট এবং গুগলের গায়েও।