ভারতেও ওমিক্রনের থাবা, কর্ণাটকে শনাক্ত ২ জন

আফ্রিকা, ইউরোপের দেশ হয়ে যুক্তরাষ্ট্রের পর এবার ভারতেও থাবা বসাল করোনাভাইরাসের নতুন ধরন। কর্ণাটক রাজ্যে দুইজনের দেহে শনাক্ত হয়েছে ওমিক্রন।

ভারতে ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার ঘটনা এটিই প্রথম। আক্রান্ত দুইজনের একজনের বয়স ৬৬ বছর, অপরজন ৪৬ বছরের ব্যক্তি। স্বাস্থ্যমন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে বৃহস্পতিবার এক সাংবাদিক বৈঠক করে এ খবর নিশ্চিত করা হয়েছে।

এনডিটিভি জানায়, মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব লব আগরওয়াল বলেছেন, ব্যক্তিগত গোপনীয়তা রক্ষার স্বার্থে আক্রান্ত দুইজনের পরিচয় আপাতত প্রকাশ করা হচ্ছে না।

তবে অন্য কয়েকটি সূত্রে বলা হয়েছে, ওমিক্রন শনাক্ত হওয়া ৬৬ বছরের ব্যক্তিটি একজন বিদেশি। তিনি দক্ষিণ আফ্রিকা ভ্রমণ করেছিলেন। আর ৪৬ বছর বয়সী ব্যক্তি ব্যাঙ্গালুরুর এক স্বাস্থ্যকর্মী।

যারা আক্রান্ত দুই জনের সংস্পর্শে এসেছেন তাদের ইতোমধ্যেই চিহ্নিত করা হয়েছে এবং আইসোলেট করে পরীক্ষা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন লব আগরওয়াল। তিনি জানান, ওমিক্রন সংক্রান্ত বিশেষ কোনও উপসর্গ দেখা যায়নি আক্রান্তদের শরীরে।

ওমিক্রন নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে বরং দেশবাসীকে সচেতন হওয়া, কোভিড বিধি মেনে চলা এবং জমায়েত এড়িয়ে চলার পরামর্শও দিয়েছেন আগরওয়াল।

ওমিক্রন নিয়ে আগেই বিশ্ববাসীকে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তবে করোনাভাইরাসের এই ধরনটি কত ভয়াবহ, তা নিয়ে এখনও বিশেষ কিছু জানা যায়নি। তবে প্রয়োজনীয় সতর্কতামূলক ব্যবস্থা এরই মধ্যে নিয়েছে ভারত। ১২ টি দেশকে ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ হিসেবে চিহ্নিত করেছে তারা।

ভারতের কোভিড-১৯ টাস্ক ফোর্সের প্রধান কর্মকর্তা বলেছেন, “এখনই কড়া কোনও বিধিনিষেধ আরোপ করা হবে না। পরিস্থিতি ভালভাবে নিয়ন্ত্রণে আছে।”

ওদিকে, কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রীও বলেছেন, ওমিক্রনের সঙ্গে লড়াইয়ের জন্য তার সরকার পুরোপুরি প্রস্তুত। বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ নিয়েই কাজ করা হবে বলে জানান তিনি। তাই আতঙ্কিত না হওয়ার বার্তা দিয়েছেন তিনিও।

ওমিক্রন পৌঁছেছে ২০ দেশে, ইউরোপে ছিল শনাক্ত হওয়ার আগেই