মাদারীপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীকে হাতুড়ি পেটার অভিযোগ

মাদারীপুর সদর উপজেলার কালিকাপুর ইউনিয়নের এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মীকে হাতুড়ি পেটা করার অভিযোগ উঠেছে।

কালিকাপুর ইউনিয়নের হোসনাবাদ গ্রামে  শুক্রবার সন্ধ্যায় এ ঘটনা ঘটে।

আহত হবি মাতুব্বর (৫৫) কালিকাপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী (বর্তমান চেয়ারম্যান) এজাজুর রহমান আকনের সমর্থক এবং হোসনাবাদ গ্রামের লতিফ মাতুব্বরের ছেলে।

এ ঘটনায় আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী (আনারস প্রতীক) আবু তালেব বেপারীর কর্মী-সমর্থকদের দায়ী করেছেন হবি মাতুব্বরের স্বজনেরা।

হবি মাতুব্বরের ভাই বাচচু মাতুব্বর বলেন, তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনের প্রচারণার শেষ দিন শুক্রবার সন্ধ্যায় তার ভাই হোসনাবাদ গ্রামে এজাজুর রহমোনের পক্ষে ঘোড়া মার্কায় প্রচার চালাচ্ছিলেন। এ সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু তালেব বেপারীর কর্মী-সমর্থক কালু বেপারী, বেলায়েত হোসেন ও দেলোয়ার খানসহ কয়েকজন হবিকে ধাওয়া দেয়। এ সময় হবি দৌড়ে স্থানীয় সোহরাব মাতুব্বরের ঘরে আশ্রয় নেয়।

“পরে তালেবের কর্মী-সমর্থকরাও সোহরাবের ঘরে ঢুকে হবিকে হাতুড়ি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করে। এ সময় ওই ঘরে থাকা চন্দ্রবানু বেগম হবিকে বাঁচাতে গেলে হামলাকারীদের ধারাল অস্ত্রের আঘাতে তার ডান হাতের কনিষ্ঠ আঙ্গুল সম্পূর্ণ কেটে যায়।”

চন্দ্রবান বেগম বলেন, “আমি ঘরের ভেতরে বসে পান খাচ্ছিলাম। হঠাৎ হবি মাতুব্বর এসে আমাদের ঘরে ঢোকে। এর পরপরই সাত-আটজন লোক ঘরে ঢুকে হবিকে হাতুড়ি দিয়ে পেটাতে শুরু করে। আমি ছাড়াতে গেলে আমাকেও কোপ দেয়। আমার একটি আঙ্গুল প্রায় পুরাটা কেটে গেছে।”

তবে অভিযোগ অস্বীকার করে আবু তালেব বেপারী বলেন, “এই ঘটনায় আমর কোন কর্মী জড়িত নয়। এজাজ আকনের লোকজন নিজেরাই এ ঘটনা ঘটিয়ে আমাদের হয়রানি করার চেষ্টা করছে।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মাদারীপুর থানার ওসি কামরুল ইসলাম মিঞা বলেন, তারা ঘটনাটি শুনেছেন। এখনও কেউ থানায় অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।