কুমিল্লায় নজরুলের স্মৃতিচিহ্ন অনাদরে

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ১৯২১ সালের এপ্রিল থেকে ১৯২৪ সালের জানুয়ারি পর্যন্ত পাঁচ দফায় প্রায় এক বছর কুমিল্লায় ছিলেন। এই সময়ে তিনি ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলন করতে গিয়ে গ্রেপ্তারও হন। কবির স্মৃতিবিজড়িত স্থানগুলো অনাদরে-অবহেলায় হারিয়ে যাচ্ছে; সেগুলো সংরক্ষণের দাবি করেছেন নজরুল গবেষকরা।

বুধবার জাতীয় কবির ১২৩তম জন্মজয়ন্তী উপলক্ষে গবেষকরা এই দাবি করেন। গত বছরের ৫ এপ্রিল কুমিল্লায় কবির আগমনের শতবর্ষ পূর্ণ হয়। কবিভক্তরা বলছেন, শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় কুমিল্লায় চিরঅম্লান হয়ে থাকবেন নজরুল।

‘বিদ্রোহী’ কবিতার শতবর্ষপূর্তি উপলক্ষে এবার রাষ্ট্রীয়ভাবে কবির জন্মজয়ন্তী কুমিল্লায় উদযাপিত হচ্ছে। বুধবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত জাতীয় আয়োজন অনুষ্ঠিত হবে কুমিল্লা নগরীর বীরচন্দ্র গণপাঠাগার ও নগর মিলনায়তন প্রাঙ্গণে (টাউন হল)।

গবেষকরা বলেন, ১৯২১ সালের ২১ নভেম্বর রাজগঞ্জ বাজারে কবি ব্রিটিশবিরোধী মিছিলে অংশ নিয়েছিলেন। সেখান থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। ১৯২২ সালের ২৩ নভেম্বর শহরের ঝাউতলা সড়কের শেষ প্রান্তে রাস্তার দক্ষিণ পাশ থেকে ‘আনন্দময়ীর আগমন’ কবিতার জন্য কবি গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়া সরকারি কলেজ সংলগ্ন রানীর দীঘির পাড়ের পশ্চিম-দক্ষিণ কর্নারে বসে কবি গান ও কবিতা চর্চা করতেন। এ ছাড়া জাতীয় কবির অসংখ্য স্মৃতি জড়িয়ে রয়েছে কুমিল্লার নগরী ও মুরাদনগরের দৌলতপুরের মাটির সঙ্গে। যা সংরক্ষণের অভাবে বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে। অনেক স্থানে নেই কোনো স্মৃতিফলকও।

জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, কবির স্মৃতিবিজড়িত কুমিল্লা নগরীতে স্থাপিত ১২টি স্মৃতিফলক এ বছর সংস্কার করা হয়েছে। নজরুলের প্রেম, বিয়ে-বিচ্ছেদ, গ্রেপ্তার ও কাব্যচর্চাসহ বহু ঘটনার সাক্ষী হিসেবে ১৯৮৩ সালে স্থাপন করা হয়েছিলো স্মৃতিফলকগুলো।

নজরুলকে নিয়ে চর্চা ও গবেষণার জন্য কুমিল্লার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৩ সালের ২০ এপ্রিল উদ্বোধন হওয়া নজরুল ইনস্টিটিউট কেন্দ্র নিয়েও ক্ষোভের শেষ নেই কবিপ্রেমিদের। অনেকে বলেছেন, যে অর্থে কুমিল্লায় নজরুল ইনস্টিটিউট স্থাপিত হয়েছিল, সেই অর্থে এটির ব্যবহার হচ্ছে না। পর্যাপ্ত লোকবল না থাকায় এখানে অনেক কিছুই করা সম্ভব হচ্ছে না। হচ্ছে না নজরুলকে নিয়ে গবেষণা।

কুমিল্লার বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও নজরুল গবেষক ড. আলী হোসেন চৌধুরী বলেন, “অনেকে বলছেন, পাঁচ দফায় কবি ১১ মাস কুমিল্লায় ছিলেন। কিন্তু আমার গবেষণায় দেখেছি, কবি এক বছরের বেশি সময় কুমিল্লায় অবস্থান করেছেন। কুমিল্লাতে তিনি ৫৩টি রচনা, কবিতা, গান লিখেছেন বলে তথ্য পাওয়া গেছে; যা বাংলাদেশের আর কোথাও নেই।

কুমিল্লা নজরুলের জীবনের গুরুত্বপূর্ণ অধ্যায় উল্লেখ করে এই গবেষক বলেন, “কুমিল্লাকে বাদ দিয়ে কবির জীবনী রচনা করা যাবে না। কবির জীবনের প্রথম অনেক কিছুই ঘটেছে কুমিল্লায়। কবি প্রথম প্রেম ও বিয়ে করেছেন কুমিল্লায়, দ্বিতীয় বিয়েও কুমিল্লায়।”

“তিনি কুমিল্লায় ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনে মিছিলে গান লিখে এবং সুর করে প্রথম প্রকাশ্য গায়ক ও সুরকার হিসেবে আবির্ভূত হন। কবির প্রথম প্রকাশ্য মঞ্চ নাটক কুমিল্লা টাউন হলে। তিনি গানের প্রথম প্রশিক্ষণ নিয়েছেন কুমিল্লাতে। এমন অনেক কিছুই আছে কবির জীবনে যার প্রথম কুমিল্লা জেলায়। কুমিল্লায় বিচরণের পর কলকাতায় গিয়ে নজরুল হয়ে উঠেছিলেন বিদ্রোহী কবি।”

আলী হোসেন চৌধুরী আরও বলেন, “নজরুল কুমিল্লার অহংকারের জায়গা। তবে কুমিল্লায় নজরুলের অনেক স্মৃতিচিহ্ন হারিয়ে যাচ্ছে। যে উদ্দেশ্য নিয়ে নজরুল ইনস্টিটিউট স্থাপিত হয়েছিল তার মোটেও প্রতিফলন নেই। এখানে নজরুলকে নিয়ে চর্চা ও গবেষণা হচ্ছে না।”

“এ ছাড়া সরকারি উদ্যোগে এখন পর্যন্ত কবির নামে কুমিল্লায় কোনো শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থাপিত হয়নি। যা আমাদেরকে খুবই কষ্ট দেয়। তবে এবার ১২৩তম জন্মজয়ন্তী জাতীয়ভাবে কুমিল্লায় উদযাপিত হচ্ছে, এজন্য আমরা খুবই আনন্দিত। আমি মনে করি, প্রতি বছরই এই অনুষ্ঠান কুমিল্লায় হওয়া উচিত।”

কুমিল্লার আরেক শিক্ষাবিদ ও নজরুল গবেষক অধ্যাপক শান্তি রঞ্জন ভৌমিক বলেন, “কুমিল্লায় নজরুলকে নিয়ে এখন পর্যন্ত যেটুকু কাজ হয়েছে, তার প্রায় সবটুকুই হয়েছে ব্যক্তি উদ্যোগে। বৃহত্তর কুমিল্লার সন্তানরাই নজরুলকে নিয়ে সবচেয়ে বেশি গবেষণা করেছেন।”

“নজরুল ইনস্টিটিউট কেন্দ্র স্থাপনের পর আমাদের বিশ্বাস ছিল গবেষণার মাধ্যমে কুমিল্লায় নজরুলকে অকৃত্রিমভাবে আবিষ্কার করা সম্ভব হবে। কিন্তু তেমনটা হয়নি। নজরুল ইনস্টিটিউটে শুধু সরকারি-বেসরকারি অনুষ্ঠান করা হয়। কিন্তু নজরুলকে নিয়ে কোনো গবেষণা হয় না। নজরুল পরিষদে এমন অনেকেই দায়িত্ব পালন করছেন, যারা আসলে নজরুল সম্পর্কে কিছুই জানেন না এবং বোঝেনও না।”

এই গবেষক আরও বলেন, “কবি ১১ মাসের মধ্যে কুমিল্লা শহরে নয় মাস আর মুরাদনগরে ছিলেন দুই মাস। নজরুলের স্মৃতিচিহ্নগুলো দিন দিন হারিয়ে যাচ্ছে। এগুলো সংরক্ষণের উদ্যোগ নিতে হবে। এ ছাড়া নজরুল ইনস্টিটিউট কেন্দ্রে পর্যাপ্ত লোকবল নিয়োগ দিতে হবে। যারা শুধু চাকরির জন্য নয়, নজরুলকে ভালবেসে প্রতিষ্ঠানের জন্য কাজ করবেন।”

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে কুমিল্লার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ শাহাদাত হোসেন বলেন, এ বছর জাতীয় কবির ১২৩তম জন্মজয়ন্তী জাতীয়ভাবে কুমিল্লায় পালিত হচ্ছে। এরই মধ্যে আমাদের সব প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে। আমরা কুমিল্লায় যতগুলো স্থানে কবির স্মৃতিফলক রয়েছে, তার সবগুলো সংস্কার করেছি।

“নজরুল ইনস্টিটিউটে কবিকে নিয়ে গবেষণা কম হচ্ছে, এটা সত্য। তবে কবিকে নিয়ে প্রতিটি অনুষ্ঠান যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়ে থাকে। এরপরও আমরা এ বিষয়ে আরও উদ্যোগ নেব।”

গবেষকরা জানান, কবির দুই জীবনসঙ্গীর প্রথমজন কুমিল্লার মুরাদনগর উপজেলার দৌলতপুর গ্রামের খাঁবাড়ির আলী আকবর খানের ভাগনি নার্গিস আসার খানম আর অপরজন কুমিল্লা নগরীর বসন্ত কুমার সেনগুপ্তের মেয়ে আশালতা সেনগুপ্তা দুলী। তবে কবি তাঁর নাম দিয়েছিলেন প্রমীলা।

নজরুলের জন্মজয়ন্তীর অনুষ্ঠানমালা

বুধবার সকালে রাষ্ট্রীয়ভাবে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১২৩তম জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী হাছান মাহমুদ। সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

কবির জন্মজয়ন্তী উৎসবের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘বিদ্রোহীর শতবর্ষ’। জন্মজয়ন্তী উৎসবকে ঘিরে কুমিল্লায় বেশ কয়েকদিন ধরেই চলছে নানা আয়োজন। শুক্রবার সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার আয়াজ মাবুদ বলেন, কবির ১২৩তম জন্মজয়ন্তী উৎসবকে ঘিরে কুমিল্লার সংগঠনগুলো মাসব্যাপী সকাল-সন্ধ্যা মহড়া দিয়েছে। প্রতিদিন সবাই অক্লান্ত পরিশ্রম করেছে।

“এরই মধ্যে আমরা মূল অনুষ্ঠানের আগের কাজগুলো সুন্দরভাবে শেষ করতে সক্ষম হয়েছি। যার মধ্যে ছিলো বিদ্রোহী নজরুল আর্টক্যাম্প ও বিভিন্ন স্কুল-কলেজ পর্যায়ে শিশুকিশোরদের চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতা।

এ ছাড়া রয়েছে নৃত্যানুষ্ঠান ‘দ্রোহে জাগরণে’। এবারের জাতীয় অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ ‘শতকন্ঠে বিদ্রোহী’ যা উদ্বোধনী পর্বে মঞ্চায়ন হবে।